আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে দাঁড়িয়ে আত্মহত্যা করলেন বসনিয়ার যুদ্ধাপরাধী

38

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: দ্য হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে দাঁড়িয়ে বিষ পানে আত্মহত্যা করেছেন বসনিয়া ক্রোয়েটের এক যুদ্ধাপরাধী। বুধবার তিনি বিচার প্রক্রিয়া চলাকালীন সময়েই বিষপান করেন।
৭২ বছর বয়সী স্লোবোদান প্রালিয়াক আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে বলেন তিনি বিষ খেয়েছেন। এরপর আপিল কার্যক্রম স্থগিত করে দেওয়া হয়। দ্য হেগের আদালত ঘোষণা করে যে আদালত একটা ‘অপরাধ স্থলে পরিণত হয়েছে’।
যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে আদালতের কাঠগড়ায় সাবেক যে ছয়জন বসনিয় ক্রোয়াট রাজনৈতিক ও সামরিক নেতাকে তোলা হয়েছে তাদের একজন ছিলেন অভিযুক্ত স্লোবোদান প্রালিয়াক। ১৯৯২ থেকে ৯৫ পর্যন্ত বসনিয়ার যুদ্ধের সময় পূর্ব মোস্তার শহরে অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালে তাকে বিশ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। বুধবার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের রায়ে তার কারাদণ্ড বহাল রাখা হয়।

এই ঘোষণা শোনার পর সাবেক অধিনায়ক প্রালিয়াক বিচারককে বলেন তিনি অপরাধী নন। তারপর তিনি একটি বোতল থেকে কিছু একটা পান করে বলেন, ‘আমি বিষ খেয়েছি’। প্রালিয়াক উঠে দাঁড়ান এবং মুখের কাছে হাত তোলেন, মাথাটা পেছনদিকে এমনভাবে হেলান যাতে মনে হয় তিনি গেলাস থেকে তরল কিছু পান করছেন।
বিচারকমণ্ডলীর সভাপতি সঙ্গে সঙ্গে আদালতের কার্যক্রম স্থগিত করে দেন এবং অ্যাম্বুলেন্স ডাকা হয়। বিচারক বলেন, ‘ঠিক আছে, আমরা স্থগিত…আমরা স্থগিত…দয়া করে পর্দা টেনে দিন। যে গ্লাস থেকে তিনি কিছু একটা পান করলেন সেটা কেউ সরাবেন না।’ পর্দা টেনে দেয়ার আগে আদালত কক্ষে একটা বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি হয়। তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। । সেখানেই প্রালিয়াক মারা যান।
এ নিয়ে নিরপেক্ষ একটি তদন্ত শুরু করা হয়েছে।
প্রসঙ্গত, বসনিয় ক্রোয়াট প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রথম সারির সৈন্যদের সাবেক অধিনায়ক প্রালিয়াককে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিলো। জাতিসংঘ যুদ্ধাপরাধ মামলার রায়ে বলা হয় ১৯৯৩ সালের গ্রীষ্মে সৈন্যরা প্রোজোর এলাকায় মুসলমানদের যখন ব্যাপক ধরপাকড় করছিল, তখন খবর পেয়েও তিনি তা বন্ধ করার জন্য কোন উদ্যোগ নিতে ব্যর্থ হন।
সূত্র: বিবিসি