আমি সংখ্যালঘুদের পক্ষে: মমতা

54

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::
ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপি পশ্চিসবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে প্রায়ই এই অভিযোগ করে যে, তিনি সংখ্যালঘুদের তোষণ করেন। এ নিয়ে মোদির দলকে এক হাত নিলেন মমতা।

শুক্রবার উত্তর চব্বিশ পরগনার হাড়োয়া জনসভায় মমতা বলেন, তিনি কাউকে তোষণ করেন না। তবে তিনি অবশ্যই সংখ্যালঘুদের পক্ষে।

সংখ্যালঘু অধ্যুষিত হাড়োয়ার জনসভায় মমতা বলেন, ‘আমাকে যদি প্রশ্ন করা হয়, তুমি কেন সংখ্যালঘুদের পক্ষে? এ রাজ্যে তো সংখ্যালঘু মাত্র ৩১ শতাংশ। তাদের বাদ দিয়ে সব কাজ করতে হবে। আমি তা পারব না। তাই আমি সংখ্যালঘুদের পক্ষে।’

মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেন, তার সরকার তফসিলিদের পাশেও রয়েছে। তিনি জানান, রাজ্যের ২৩.৬ শতাংশ মানুষ তফসিলি জাতির। সংখ্যালঘুদের মতোই তফসিলিদের জন্যও কাজ করছে তার সরকার। এ জন্য তার গর্ব হয়।

ইদানীং বিজেপি মমতার সংখ্যালঘু প্রীতি নিয়ে নানা কথা বলছে। তাদের অভিযোগ মুখ্যমন্ত্রী সংখ্যালঘুদের নিয়ে রাজনীতি করেন। এর জবাবে বিজেপিকে ছদ্ম হিন্দুত্ববাদী বলে আক্রমণ করেন মমতা। শুক্রবারের জনসভায় বিজেপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আমি তো দুর্গাপুজো করি। আবার ইফতার আর বড়দিনেও যাই। এটাই আমাদের সংস্কৃতি। এরা এখন স্বামী বিবেকানন্দের চেয়েও বড় হিন্দু হতে চাইছে।’

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, ‘শুনলাম একজন গুজরাটের প্রচারে আজানের সময় ভাষণ বন্ধ করে দিয়েছেন। আমি এ ঘটনাকে স্বাগত জানাচ্ছি। কিন্তু ভোটের সময় এই নাটক কেন? যখন দলিতদের উপর অত্যাচার করা হচ্ছে তখন মুখে কোনো কথা নেই। গুজরাটে যা হয় বাংলায় তা হয় না।’

সম্প্রতি গুজরাটে এক নির্বাচনী সভায় বক্তব্য রাখার সময় আজান শুনে মাইক বন্ধ রাখেন মোদি। এ প্রসঙ্গেই মমতার এই উক্তি। এর আগে এ নিয়ে মোদির সমালোচনা করেছিলেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও।

সূত্র: আনন্দবাজার