মান্না-আমিনুল-পার্থকে নিয়ে বিএনপিতে আলোচনা

53

নিউজ ডেস্ক ::
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন মেয়র পদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীতা নিয়ে ইতিমধ্যে দলের মধ্যে চলছে নানা হিসাব নিকাষ। অনেকে বিভিন্ন জায়গায় দৌড়-ঝাপও শুরু করেছেন। তবে বিএনপির নেতাকর্মীরা মনে করছেন, আনিসুল হকের জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতার কথা মাথায় রেখেই দল থেকে পরিচ্ছন্ন কোন নেতাকে মনোনয়ন দেবে। প্রয়াত মেয়রের মতো পরিচিত মুখ আর সংস্কৃতমনা প্রার্থীকে মাঠে নামাতে পারলে নির্বাচনে জয়লাভ করা সম্ভব হবে বলেও তারা মনে করছেন।

সূত্র জানায়, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র নির্বাচনে বিএনপিতে সবচেয়ে আলোচনায় আছেন জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিএনপির কেন্দ্র্রীয় ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল হক, ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থ ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

আনিসুল হকের মৃত্যুতে সোমবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদ শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে আইন অনুযায়ী ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

ওই নির্বাচনের বিএনপির প্রার্থীতার বিষয়ে দলটির নেতারা প্রকাশ্যে মুখ না খুললেও দলের অভ্যন্তরে আলোচনা চলছে।

বিএনপির একাধিক প্রার্থীর নাম উচ্চারিত হচ্ছে নেতাকর্মীদের মাঝে। ২০১৫ সালের নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে লড়াই করেছিলেন বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল। রাজনীতি ও নির্বাচনী লড়াইয়ে এটাই তার প্রথম অভিজ্ঞতা। তবে শেষ পর্যন্ত কারচুপির অভিযোগে ভোটের দিন প্রথম প্রহরেই তিনি নির্বাচন বয়কটের ঘোষণা দেন।

এবারও বিএনপির একটি অংশ মনে করছেন, তাবিথ আউয়ালকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। কিন্তু সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক অর্থ প্রতিষ্ঠানে লগ্নিকারী হিসেবে আব্দুল আউয়াল মিন্টু, তাবিথ আউয়ালসহ তাদের পরিবারের নাম উঠে আসায় অনেকটা চাপে রয়েছেন তিনি। এক্ষেত্রে আগামী সিটি করপোরেশন নির্বাচনে তার অংশগ্রহণ অনেকটা অনিশ্চিত বলে মনে করছেন নেতাকর্মীরা।

তাবিথ আউয়ালের পর যার নাম বেশি উচ্চারিত হচ্ছে তিনি হলেন, জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিএনপির কেন্দ্র্রীয় ক্রীড়া সম্পাদক আমিনুল হক। দলীয় প্রার্থীতায় চমক সৃষ্টির জন্যই সারাদেশে পরিচিত মুখ আর ক্লিন ইমেজের অধিকারী আমিনুলকে নিয়ে পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে দলের একটি সূত্র জানিয়েছে। প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের বিপরীতে সংস্কৃতিক আর ক্রীড়াঙ্গনের জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে চাইছেন তারা। এছাড়া বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, দলের যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের নামও শোনা যাচ্ছে।

নেতাকর্মীরা জানান, ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল এই সিটিতে নির্দলীয় ভোট হলেও এবার দলীয় প্রতীকে উপ-নির্বাচন হবে। এ নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হবে বলে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির পড়বে চ্যালেঞ্জে। ভোটের মাঠে নৌকা-ধানের শীষের লড়াই হবে বলেও তারা মনে করছেন।

বিএনপি নেতাকর্মীরা জানান, দলে প্রার্থীতার তালিকার বাইরেও ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপির চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আন্দালিব রহমান পার্থকে নিয়ে একটি অংশ পরিকল্পনা করছে। টকশো আর সুবক্তা হিসেবে তার গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। এ বিষয়ে আন্দালিব রহমান পার্থ বলেন, আগামী ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচনে জোটের পক্ষ থেকে যাকেই মনোনয়ন দেয়া হবে আমি ও আমরা তার জন্যই কাজ করবো। প্রার্থী কে হবেন তা নির্ধারন করবেন জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া।

এদিকে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে নিয়েও বিএনপিতে আলোচনা চলছে। কেউ কেউ বলছেন, মান্না প্রার্থী হতে চাইলে বিএনপি তাকে সমর্থন দিতে পারে। সেক্ষেত্রে বিএনপি প্রার্থী দেবে না। মান্না এর আগেও মেয়র নির্বাচনে আগ্রহী ছিলেন।