নতুন বছরের প্রথম অধিবেশন, যা থাকছে রাষ্ট্রপতির ভাষণে

11

নিউজ ডেস্ক ::

দশম জাতীয় সংসদের ২০১৮ সালের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের দেওয়া দুটি ভাষণের খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে সচিবালয়ে এ বিষয়ে ব্রিফ্রিং করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মাদ শফিউল আলম।

তিনি জানান, দুটি ভাষণের মধ্যে একটি মূল ভাষণ। অন্যটি পঠিত বা সংক্ষিপ্ত ভাষণ।
রাষ্ট্রপতির এই ভাষণে ৯টি বিষয় থাকবে। এগুলো হলো- দেশের সার্বিক পরিস্থিতি ও অর্থনৈতিক চিত্র, আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে গৃহীত পদক্ষেপ ও সাফল্য, রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে বিভিন্ন খাতে গৃহীত কর্মসূচি ও এর প্রয়োগ, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে তথ্য ও যোগযোগ প্রযুক্তির উন্নয়ন সম্পর্কে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন, দেশে-বিদেশে কর্মসংস্থান, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির প্রসার, মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার প্রক্রিয়ার অগ্রগতি, বৈদেশিক ক্ষেত্রে অর্জিত সাফল্য এবং প্রশাসনিক নীতি কৌশল অগ্রযাত্রায় নির্দেশনা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, বর্ধিত পরিসরে ৭২ হাজার ৩৮৬ শব্দ সংযুক্তিসহ রাষ্ট্রপতির ভাষণ রচিত হচ্ছে। তবে সংক্ষিপ্ত পরিসরে পঠিত হবে ৭ হাজার ৪৭৭ শব্দের ভাষণ। ভাষণ দুটি আগামী ৪ জানুয়ারির মধ্যে সংযোজন-বিয়োজনের পর কোন ফ্রেমে দাঁড়াবে, তা পরিষ্কার করে বলা যাবে।

২০১৭ সালে সংসদে এক ঘণ্টাব্যাপী দেওয়া রাষ্ট্রপতির ভাষণ ছিল ৫ হাজার ৮০৬ শব্দের।
শফিউল আলম জানান, মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কম্বোডিয়া (৩-৫ ডিসেম্বর) সফর, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের (৬-১০ ডিসেম্বর) নিউইয়র্ক সফর, যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে অনুষ্ঠিত কমনওয়েলথ অর্থমন্ত্রীদের সম্মেলন (১২-১৫ অক্টোবর), বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফের বার্ষিক সভায় অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের অংশগ্রহণ সম্পর্কে অবহিত করা হয়।

এছাড়া মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত ষষ্ঠ ওয়ার্ল্ড এডুকেশন কংগ্রেসে শিক্ষামন্ত্রীর অংশগ্রহণ (২১-২২ সেপ্টেম্বর) ও নৌ পরিবহনমন্ত্রীর যুক্তরাজ্য সফর (২৪-২৮ জুলাই) সম্পর্কে মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।