রিসেপশনের নিমন্ত্রণপত্রেও চমক বিরুষ্কার!

207

বিনোদন ডেস্ক ::
বিয়ে সেরেছেন চুপিসারেই। পরিচিত বৃত্ত থেকে অনেকটা দূরে ঘনিষ্ঠ বন্ধুবান্ধব নিয়ে সাত পাকে বাঁধা পড়েছেন। তবে রিসেপশনে কোনো রকম ঘাটতি রাখছেন না। পরিচিতদের কাছে ইতিমধ্যেই পৌঁছে গেছে বিয়ের নিমন্ত্রণপত্র। আর সেখানও চমক দিলেন বিরুষ্কা (বিরাট-অনুষ্কার)।

কী আছে বিরুষ্কার নিমন্ত্রণপত্রে? ফ্লোরাল ডিজাইনের একটি ব্যাগ। দম্পতির পোশাকের রঙের সঙ্গেই মাননসই। সেই ব্যাগের মধ্যেই আছে নিমন্ত্রণপত্র। তার একদিকে আটকানো আছে ছোট্ট একটি চারাগাছ। অন্যদিকে দু’জনের নাম লেখা ও নিমন্ত্রণের বয়ান।

ইতিমধ্যেই টুইটারে ছড়িয়ে পড়েছে বিরাট-অনুষ্কার নিমন্ত্রণপত্রের সে ছবি। প্রথম সে কাজ করেন পরিচালক মহেশ ভাট। বিরাট-অনুষ্কার স্টাইলিশ নিমন্ত্রণপত্র মুগ্ধ করেছে তাকে। তার দৌলতেই বলা যায় সকলে চাক্ষুষ করেছেন এই রয়্যাল আমন্ত্রণপত্র। বিয়ের সঙ্গে গাছ লাগানোর প্রক্রিয়াকে উৎসাহ দিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশংসা আদায় করে নিচ্ছেন তারা। ইনডোর প্ল্যান্টের যে চারাটি তারা পাঠিয়েছেন, তা আদরের সঙ্গেই তুলে রেখেছেন নিমন্ত্রিতরা।

২১ ডিসেম্বর হচ্ছে এই রিসেপশন। বিরাটের শহর দিল্লিতেই আমন্ত্রিত হয়েছেন আত্মীয়রা। বিয়ের মুহূর্তেও অবশ্য জণকল্যাণের কথা ভোলননি নবদম্পতি। নিজেদের বিয়ের ছবি চ্যারিটির জন্য বিক্রি করে দিয়েছেন তারা।

এদিকে পরিচিতদের শুভেচ্ছার জবাব দিচ্ছেন বিরাট, অনুষ্কা দুজনেই। বিরাট যখন ছুটিতে, তখন ভারতীয় দলের নেতৃত্ব কাঁধে তুলে নিয়েছেন রোহিত শর্মা। আর সেখানেই নজির গড়েছেন তিনি। এই গ্রহে তিনিই একমাত্র একদিনের ম্যাচে তিনটি দ্বিশতরানের মালিক। রোহিতের এই কৃতিত্বকে স্বাগত জানালেন ভারতীয় ক্রিকেটের ‘ফার্স্ট লেডি’। তার থেকে এসেছে অভিনন্দন বার্তা।

এছাড়া শাহরুখ খান থেকে তাবড় তারকারা অনুষ্কাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন। তাদেরও অভিনন্দনের জবাবে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন অনুষ্কা। অন্যদিকে বিরাট ক্রিকেট জগতের সকলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

প্রথমে জানা যায়, দক্ষিণ আফ্রিকাতেই হানিমুন সারবেন বিরাট-অনুষ্কা। অবশ্য এর ফাঁকে তারা রোম ঘুরে এসেছেন। দক্ষিণ আফ্রিকায় বিরাটের সিরিজ। অন্যদিকে অনুষ্কার হাতেও একের পর এক ছবির কাজ। তাই দক্ষিণ আফ্রিকা সফর খানিকটা ব্যস্ততাই কাটবে। তার আগেই হাতে কটাদিন ঝামেলাহীন ছুটি ছিল। তা একান্তেই কাটিয়েছেন তারা। বিয়ে মিটেছে। রিসেপশন আসন্ন। তবু এখনও এই বিয়ের আলোচনায় মশগুল নেটদুনিয়া।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন