‘ঢাকা অ্যাটাক’-এর সেঞ্চুরি

26

বিনোদন ডেস্ক ::
‘ঢাকা অ্যাটাক’। ২০১৭ সালে ঢাকাই ছবির রূপ পাল্টে দেয়া একটি ছবির নাম। একটি ইতিহাসের নামও বটে। কারণ মুক্তির পর টানা ৯৯ দিন ধরে চলছে এই ছবি। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) ‘ঢাকা অ্যাটাক’ মুক্তির ৯৯তম দিন। শনিবারই সেটা ১০০তে গিয়ে সেঞ্চুরি পূরণ করবে। যা ঢালিউডের জন্য অনেক বড় অর্জন।

‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির নির্মাতা দীপংকর দীপন জানান, ঢাকার ৪টি হল অর্থাৎ বলাকা, মুধমিতা, শ্যামলী ও মতিমহল-এ আবারও প্রদর্শিত হচ্ছে ‘ঢাকা অ্যাটাক’। টানা ৯৯তম দিনে এসে ঢাকার অন্যতম প্রধান চারটি সিঙ্গেল স্ক্রিন সিনেমা হলে ‘ঢাকা অ্যাটাক’র রিলিজ আমাকে আস্থা দেয়, আমরা দর্শকদের কাছে পৌঁছাতে পেরেছি।

ফেসবুকের মাধ্যমে দীপংকর দীপন আরও বলেন, এই সিনেমা চলবে না- নানা জনের মুখে এই কথা বার বার শুনেও যে দর্শকের প্রতি বিশ্বাস রেখে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ বানিয়েছি, তারা আমাদের বিশ্বাসের অনেক গুন ফিরিয়ে দিয়েছে। আমি কৃতজ্ঞ, সত্যিকারের চিরঋণী দর্শকের কাছে। আমি শিখেছি বড় কিছু করতে হলে শুদ্ধ ভাবে বাঁচতে হয়, শুদ্ধ ভাবে ভাবতে হয়, দর্শকের বুদ্ধিমত্তায় বিশ্বাস করতে হয়। আমি চেষ্টা করে যাব, আমার ব্যাংকে টাকা না জমুক, ঝুলিতে অ্যাওয়ার্ড না জমুক, কিন্তু আপনাদের ভালবাসায় যেন আমার মনে একাউন্ট ভরে থাকে।

প্রসঙ্গত, গত ৬ অক্টোবর শতাধিক সিনেমা হলে মুক্তি পায় ‘ঢাকা অ্যাটাক’। তারপরের ঘটনা তো ইতিহাস। দর্শকের ভালোবাসার জোয়ারে ভাসতে থাকে এই ছবি। সিনেমা হলগুলো দর্শক সমাগমে মুখরিত হতে থাকে। সঙ্গে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ পেয়ে যায় ব্যবসাসফল ও দর্শকপ্রিয় ছবির তকমা। মজার ব্যাপার হচ্ছে, গত ১৫ সপ্তাহে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছাড়া এক ডজনের বেশি সিনেমা মুক্তি পেয়েছ। কিন্তু আলোচনায় আসতে পেরেছে হাতে গোনা দু’একটা সিনেমা। দর্শকপ্রিয়তা কিংবা ব্যবসাসফল হওয়া তো দূরের ব্যাপার।

শুধু দেশেই নয়, ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবিটি বিশ্বব্যাপীও দারুণ সাফল্য পেয়েছে। আন্তর্জাতিক আয়ে বাংলাদেশের অন্যান্য সব ছবিকে টপকে গেছে এই ছবি। ইতোমধ্যে বিশ্বের ৩২ টি দেশে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ প্রদর্শিত হয়েছে। যা বিরল রেকর্ড। অবাক করা ব্যাপার হলো, বেশ কয়েকটি দেশে হাউজফুল শো’র ঘটনাও ঘটেছে এই ছবির ক্ষেত্রে।

উল্লেখ্য, দীপংকর দীপন পরিচালিত ‘ঢাকা অ্যাটাক’ ছবির কাহিনী লিখেছেন পুলিশ কর্মকর্তা সানী সানোয়ার। এতে অভিনয় করেছেন আরিফিন শুভ, মাহিয়া মাহি, এবিএম সুমন, শতাব্দী ওয়াদু, নওশাবা, তাসকিন রহমান, আফজাল হোসেন, আলমগীর, সৈয়দ হাসান ইমামসহ আরও অনেকে। বাংলাদেশ পুলিশ পরিবার কল্যাণ সমিতির সঙ্গে ছবিটি যৌথভাবে প্রযোজনা করেছে থ্রি হুইলার্স ও স্প্ল্যাশ মাল্টিমিডিয়া।