কমলগঞ্জে পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে মাছের মেলা

17

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি ::
আজ রবিবার সনাতনি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পৌষ সংক্রান্তি উৎসবে ঘরে ঘরে তৈরী হবে নানা ধরনের পিঠা পুলি ও সুস্বাদু খাবার। উৎসবের একটি বড় অংশ হচ্ছে বাজার থেকে বড় আকারের মাছ কিনে খাবার। তাই পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ,ভানুগাছ বাজার, আদমপুর বাজার ও মুন্সীবাজারে বসেছে বিরাট মাছের মেলা। গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিভিন্ন জাতের বড় আকারের মাছ সাজিয়ে বসেন মাছ বিক্রেতারা।
দুপুরে উপজেলার ভানুগাছ বাজার, পতনঊষার, মুন্সীবাজার ও শমশেরনগর বাজারে মাছের মেলা ঘুরে দেখা যায়, প্রতিটি মাছের দোকানে মাছ সাজিয়ে রাখা হলেও সংগ্রহে রাখা হয়েছে নানা জাতের বড় আকারের মাছ। চিতল, রুই, কাতল, মৃগেল, পাঙ্গাস, আইড়, ব্রিগেট, বাঘ মাছ, রুপ চাঁদা, ঘাস কার্পসহ নানা জাতের সামুদ্রিক মাছ। বিক্রেতারাও বেশ চড়া দাম হাকালেও শেষ পর্যন্ত সহনীয় পর্যায়ের দামে মাছ বিক্রি করতে হচ্ছে। ১৫ কেজি ওজনের একটি বাঘ মাছের দাম নির্ধারণ করেন বিক্রেতা ২০ হাজার টাকা। ১০ কেজি ওজনের একটি বোয়াল মাছের দাম ছিল ১৫ হাজার টাকা। ১০ কেজি ওজনের একইট রুই মাছের দাম ছিল ১২ হাজার টাকা। ক্রেতারা জানান, এ উৎসবে বাজারে নানা জাতের বড় আকারের মাছ পাওয়া যায়। এটি দেখারও একটি বিষয় থাকে। মাছ বিক্রতা মানিক মিয়া, মারুফুর রহমান মুকুল,আমির হোসেন বলেন, দাম বড় কথা নয়। মূলত ক্রেতাদের আকর্ষিত করে এমন বড় আকারের মাছ সরবরাহ করা হয় মাছ মেলায়। মাছের আড়ৎদার আব্দুল মিয়া বলেন, আগের চেয়ে এখন দেশীয় মাছের সরবরাহ অনেক কমে গেছে। সাধারনত বাজারে এত বড় আকারের মাছ উঠে না। পৌষ সংক্রান্তি উপলক্ষে চাহিদা অনুযায়ী দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের হাওর, বাওর, বিল ও বড় নদী থেকে ধরে আনা বড় আকারের মাছ এ বিশেষ দিনের জন্য সরবরাহ করতে হয়। তাই প্রতি বছরের ন্যায় এবারও তারা বাজারের নানা জাতের বড় আকারের মাছ সরবরাহ করছেন। মাছ মেলায় গভীর রাত পর্যন্ত এ বিক্রয় চলবে বলে তিনি জানান।