বড়লেখায় যুবকের সততার অনন্য দৃষ্টান্ত

20

বড়লেখা প্রতিনিধি ::
মৌলভীবাজারের বড়লেখায় কুড়িয়ে পাওয়া ২৫ হাজার টাকা ফিরিয়ে দিয়ে সততার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন এক যুবক। তাঁর নাম ফয়জুল হক। তিনি বড়লেখা পৌরসভার মাইজপাড়া গ্রামের মৃত আনোয়ার আলীর ছেলে। ফয়জুল হক পেশায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক।
জানা গেছে, বড়লেখা পৌরসভার মাইজপাড়া গ্রামের হেলাল উদ্দিনের ছেলে জাহেদ কামরুজ্জামান গত সোমবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাঁর ভাইয়ের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকার একটি বান্ডেল নিয়ে রিকশাযোগে বাড়ি ফিরছিলেন। অসাবধানতায় টাকাটা মাইজপাড়া মোকাম সংলগ্ন এলাকায় পড়ে যায়। তিনি বাড়িতে পৌঁছার পর পকেটে হাত দিয়ে দেখেন টাকাটা নেই।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে একই গ্রামের অটোরিকশা চালক ফয়জুল হক গাড়ি নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। মাইজপাড়া মোকাম সংলগ্ন এলাকায় পৌঁছামাত্র তিনি টাকার একটি বান্ডেল রাস্তার উপর পড়ে থাকতে দেখেন। তিনি গাড়ি থেকে নেমে রাবারে মোড়ানো অবস্থায় টাকার বান্ডেলটা হাতে নেন। এরপর তিনি টাকাটা প্রকৃত মালিকের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার শপথ নেন। বাড়ি ফিরে ফয়জুল হক তাঁর বড় ভাই আব্দুস শহিদকে বিষয়টি জানান। পরে দুইভাই মিলে টাকার প্রকৃত মালিকের খুঁজে এলাকার মসজিদে গিয়ে মাইকিং করেন।
এদিকে টাকার প্রকৃত মালিক জাহেদ কামরুজ্জামান টাকাটা হারিয়ে রাস্তায় খুঁজছিলেন। এর মধ্যে মাইকে তিনি টাকা পাওয়ার বিষয়টি শুনতে পান। পরে তিনি ফয়জুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। রাত ৯টায় টাকার প্রকৃত মালিক জাহেদ কামরুজ্জামানকে সঙ্গে নিয়ে ফয়জুল হক বড়লেখা মিডিয়া সেন্টারে আসেন। সেখানে সাংবাদিকদের সামনে তিনি কামরুজ্জামানে হাতে টাকার বান্ডেলটা তুলে দেন।
টাকার মালিক জাহেদ কামরুজ্জামান বলেন, ‘আমার ভাইয়ের কাছ থেকে ২৫ হাজার টাকার একটি বান্ডেল নিয়ে বাড়ি যাচ্ছিলাম। টাকাটা রাবারে মোড়ানো ছিল। হঠাৎ রাস্তায় পড়ে যায়। খেয়াল করিনি। বাড়ি গিয়ে দেখি টাকাটা পকেটে নেই। এরপর বাড়ি থেকে বেরিয়ে টাকাটা রাস্তায় খুঁজছিলাম। এসময় মাইকে টাকা খুঁজে পাওয়ার বিষয়টি শুনতে পাই। টাকাটা ফিরিয়ে দিয়ে ফয়জুল সততার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। আমি তাঁর কাছে আজীবন কৃতজ্ঞ থাকব।’