ত্রিভুবন বিমানবন্দরের ৬ কর্মকর্তাকে বদলি

28

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃঃ
নেপালে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে হতাহতের ঘটনায় কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের এয়ার ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ (এটিসি) কক্ষে সে সময় দায়িত্বে থাকা ছয় কর্মকর্তাকে বদলি করা হয়েছে। মূলত দুর্ঘটনার কারণে মানসিক চাপ কমাতে তাদের বদলি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে নেপালের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার দেশটির ইংরেজি নিউজ পোর্টাল মাই রিপাবলিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভয়াবহ ওই দুর্ঘটনা প্রত্যক্ষ করার ধাক্কা ‘সামলে ওঠার সুযোগ দিতে’ বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ এ ব্যবস্থা নিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ঢাকা থেকে ৬৭ জন যাত্রীসহ ৭১ জন আরোহী নিয়ে গত সোমবার (১২ মার্চ) দুপুরে কাঠমান্ডুতে নামার সময় ইউএস-বাংলার ফ্লাইট বিএস ২১১ রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়লে, তাতে আগুন ধরে যায়। এ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এছাড়া আহত ২২ জনকে কাঠমান্ডুর বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানিযেছে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলো।

বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় পরষ্পরকে দোষারোপ করছে ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ এবং নেপাল এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল। তবে উদ্ধার হওয়া একটি অডিওতে পাইলট ও এয়ার ট্রাফিক কর্মকর্তাদের মধ্যে কথাবার্তার থেকে ধারণা করা হচ্ছে, ভুল বার্তার কারণেই বিমানটি দুর্ঘটনায় পড়ে। যদিও এটিসির ছয় কর্মকর্তার বদলি সে কারণে কিনা সেটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

নেপালের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের উপমহাপরিচালক রাজন পোখারেল জানান, দুর্ঘটনার পর মানসিক চাপ কমাতে কর্মকর্তাদের বদলি খুব আদর্শ পদ্ধতি। তারা দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী এবং মারাত্মভাবে মানসিক আঘাত পেয়েছেন। তাই তাদের অন্য বিভাগে বদলি করা হয়েছে যাতে তাদের মানসিক চাপ কমে আসে।

তবে অডিওবার্তা প্রকাশের পর তাদের (ছয় কর্মকর্তা) কোনো ত্রুটির কারণে বদলি করা হয়নি বলে দাবি করেন এই নেপালি কর্মকর্তা।