নরেন্দ্র মোদির ৬০% টুইটার ফলোয়ার্সই জাল! পিছিয়ে নেই রাহুল বা ট্রাম্পও

31

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
একসময় সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর অনুগামীদের সংখ্যা নিয়ে কতই না চর্চা হয়েছে! দেখানো হয়েছে, ফেসবুক-টুইটার বা ইনস্টাগ্রামে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কোটি কোটি অনুগামী রয়েছেন। আর এবার প্রকাশ্যে এল আরও এক বিস্ফোরক তথ্য। এক সমীক্ষায় উঠে এল, প্রধানমন্ত্রীকে যে সব প্রোফাইল থেকে ‘ফলো’ করা হয়, তার মধ্যে ৬০% অ্যাকাউন্টই জাল! বাস্তবে এদের কোনও অস্তিত্বই নেই।

সমীক্ষাটি চালিয়েছে টুইপ্লোমেসি নামের একটি ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম। এই গোষ্ঠীটিই বিভিন্ন সরকারি ও আন্তর্জাতিক সংস্থার ডিজিটাল স্ট্র্যাটেজি নির্ধারণ করে। তাদেরই সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা বলছে, মোদির ৪০,৯৯৩,০৫৩ জন ফলোয়ার্সের মধ্যে ২৪,৭৯৯,৫২৭টি অ্যাকাউন্টই জাল। আদতে মোদিকে ‘ফলো’ করেন ১৬, ১৯১, ৪২৬ জন। টুইটার অডিট অ্যালগরিদমের মাধ্যমে এই বিপুল জাল অ্যাকাউন্টের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে। তবে রাষ্ট্রনেতাদের মধ্যে মোদিরই সবচেয়ে বেশি জাল অনুগামী রয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

তবে মোদি একা নন, বিভিন্ন রাষ্ট্রনেতাদের টুইটার প্রোফাইল বিশ্লেষণ করে সংস্থাটি জানাচ্ছে, এরকম বহু বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরই নানা জাল প্রোফাইল থেকে ‘ফলো’ করে কৃত্রিমভাবে জনপ্রিয়তা বাড়ানো হয়। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প থেকে শুরু করে পোপ ফ্রান্সিস, রাহুল গান্ধী থেকে শুরু করে কিং সলমন- প্রায় সব বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরই এরকম লাখো জাল অনুগামী বা ‘ফেক ফলোয়ার্স’ রয়েছে। যেমন ডোনাল্ড ট্রাম্পের ৪৮,৯৩৯,৯৪৮ জন ফলোয়ার্সের মধ্যে ১২,৪৪৫,৬০৪ জনই ভুয়ো। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর ৩,৬৯৬,৪৬০ জন ফেক ফলোয়ার্স রয়েছে। এমনকী, পোপ ফ্রান্সিসেরও ৫৯% ভুয়ো ফলোয়ার্স রয়েছেন। এই রিপোর্টটি প্রকাশ্যে আসায় সোশ্যাল মিডিয়াতে তোলপাড় শুরু হয়ে গিয়েছে। বিরোধীরা বিজেপিকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েনি।