আমির খান সম্পর্কে অজানা কিছু তথ্য

61

বিনোদন ডেস্কঃ
বলিউডের সর্ব কাজের কাজী তথা মিস্টার পারফেকশনিস্ট খ্যাত অভিনেতা আমির খান। ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম প্রভাবশালী অভিনেতা তিনি। সাফল্যময় ক্যারিয়ারে সমৃদ্ধ করেছেন চলচ্চিত্র অঙ্গনকে। তেমনি হয়েছেন একাধিক প্রজন্মের কাছে আদর্শ অভিনেতা। সিনেমায় যেকোনও চরিত্রে তিনি যেমন নিখুঁত এবং সাবলিল, তেমনি বাস্তব জীবনেও মানবতার জন্য উদার একজন মানুষ আমির খান।

বিশ্বব্যাপী অসামান্য জনপ্রিয়তা অর্জন করা এই তারকার ৫৪তম জন্মদিন আজ। ১৯৬৫ সালের ১৪ মার্চ মুম্বাইয়ের একটি মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন আমির খান। তার বাবা একজন চলচ্চিত্র প্রযোজক ছিলেন। তার চাচাও একটি ছবির প্রযোজনা করেছিলেন। মাত্র ৮ বছর বয়স থেকেই অভিনয়ে আসেন আমির খান। এরপর ১১ বছর বয়সে প্রাপ্ত বয়স্ক অভিনেতা হিসেবে সিনেমায় অভিনয় শুরু করেন।

জন্মদিনে আমির খান সম্পর্কে জেনে নিন কিছু অজানা তথ্য:

খেলোয়াড় আমির : আমির মূলত অভিনেতা হিসেবেই বলিউডে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন। কিন্তু অভিনয় ছাড়াও তার রয়েছে আরও একটি গুণ। ভালো ব্যাডমিন্টন খেলেন এ অভিনেতা। বাড়ন্ত বয়সে খেলাধুলার সঙ্গে বেশ যুক্ত ছিলেন আমির। মহারাষ্ট্র টেনিস চ্যাম্পিয়ন ছিলেন তিনি।

গোসল করতে অনীহা : আমির খান সম্পর্কে এই তথ্য জানলে অবাক হতেই হয়। গোসল করা একদমই পছন্দ করেন না আমির খান। বাইরে কোথাও না গেলে তিনি গোসল করেন না। আর এই তথ্যটি জানিয়েছিলেন খোদ আমিরের স্ত্রী কিরন রাও।

দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে বড় হয়েছেন : ছোটবেলায় প্রচণ্ড অভাবের মধ্যে বড় হতে হয়েছে তারকাকে। কারণ তার বাবার সিনেমাগুলো তখন খুব একটা ব্যবসা করতে পারছিল না। কিন্তু আমিরের মাথায় চেপেছিল অভিনেতা হওয়ার ভূত। নির্বাক চলচ্চিত্র প্যারানয়িয়াতে নীনা গুপ্তার সঙ্গে অভিনয় করে সিনেমা জগতে পা রাখেন তিনি। তারপর তিনি যোগ দেন অবান্তর নামরে একটি থিয়েটার দলে। হাই স্কুলের পর আর পড়াশোনা হয়নি আমিরের। পড়াশোনা বাদ হওয়ার পর চাচা নাসির হোসাইনের সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেন। দীর্ঘদিনের অভিনয় জীবন পার করে প্রমাণ করেছেন অভিনেতা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে সেদিন ভুল করেননি তিনি।

পছন্দের তারকা গোবিন্দ : বলিউডের শীর্ষ তারকার মধ্যে আমির খান একজন। কিন্তু তার পছন্দের বলিউড তারকা গোবিন্দ। এছাড়া হলিউডের লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও এবং ডেনিয়েল ডি লুইসকে পছন্দ করেন আমির।

খুঁতখুঁতে আমির : প্রথম সিনেমা ‘কেয়ামাত সে কেয়ামাত’ দিয়েই ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছিলেন আমির। কিন্তু তার পরবর্তী সিনেমা ব্যবসা সফল হওয়ার জন্য সময় লেগেছিল দুই বছর। সেকারণে সিনেমা নির্বাচনে বেশ সচেতন হয়েছিলেন তিনি। শাহরুখ অভিনীত ডার ও স্বদেশ এবং সালমান খানের হাম আপকে হ্যায় কোন এর মতো ব্যবসা সফল সিনেমায় অভিনয়ের কথা ছিল আমিরের। কিন্তু তিনি সেগুলোর প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।

মাদাম তুসোর প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন : বিশ্বের বড় বড় তারকা থেকে শুরু করে বলিউডের অনেক তারকার মোমের মূর্তি স্থান পেয়েছে মাদাম তুসো জাদুঘরে। কিন্তু আমির তার মোমের মূর্তি বানানোর প্রস্তাবকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। এ অভিনেতা বলেছিলেন, ‘এটি আমার কাছে তেমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নয়। দর্শকরা আমাকে সিনেমাতেই দেখবে।

পছন্দের খাবার মোঘলাই : খাবার ব্যাপারে খুব একটা বাছ-বিচার নেই আমির খানের। তবে তার সবচেয়ে প্রিয় খাবার মোঘলাই। এছাড়া বিরিয়ারি বাদশাহী,শাহী রোগান জোশ তার অন্যতম পছন্দের খাবার।

প্রথম ১০০ কোটির ক্লাবে প্রবেশ: বলিউডে আমির খানই প্রথম নায়ক, যার ছবি ১০০ কোটি টাকার ক্লাবে ঢুকেছিল। ২০০৮ সালে আমির খানের ‘গজনি’ ছবিটি তুমুল জনপ্রিয়তার সঙ্গে শত কোটির বেশি আয় করে। এই পর্যন্ত তার অনেক সিনেমা এই ক্লাবে প্রবেশ করেছে।

সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমা: ভারতীয় চলচ্চিত্রে সবচেয়ে বেশি আয় করা সিনেমার অভিনেতা আমির খান। তার ‘দঙ্গল’ ছবিটি ২ হাজার কোটির বেশি আয় করেছে। এছাড়া শুধু দেশীয় আয়েও সর্বোচ্চ আয়কারি তিনটি সিনেমা আমিরের।