মৌলভীবাজারে কমরেড কার্ল মার্কস’র জন্মবার্ষিকী পালন

28

বিশ্ব শ্রমিকশ্রেণির মহান শিক্ষাগুরু কমরেড কার্ল মার্কস-এর দ্বি-শততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গত শনিবার সন্ধ্যা ৭ টার সময় মৌলভীবাজার শহরের কোর্ট রোডে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। মহান কমরেড কার্ল মার্কস-এর দ্বি-শততম জন্মবার্ষিকী উদযাপন কমিটি, মৌলভীবাজার-এর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উদযাপন কমিটির আহবায়ক প্রবীণ প্রগতিশীল রাজনীতিবিদ আফজাল চৌধুরী।
আলোচনা সভার শুরুতে উদযাপন কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক ও জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট-এনডিএফ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত বিশ্বাস কমরেড কার্ল মার্কসের কর্মময় রাজনৈতিক জীবনের উপর আলোকপাত করে ‘সকল রূপের সংশোধনবাদকে পরাস্ত করে মাকর্সবাদ-লেনিনবাদের পতাকাকে উর্দ্ধে তুলে ধরুন’ শীর্ষক লিখিত প্রবন্ধ পাঠ করেন।
আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কৃষক সংগ্রাম সমিতি মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহবায়ক কৃষকনেতা অবনী শর্ম্মা, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সভাপতি শ্রমিকনেতা মো. নুরুল মোহাইমীন, ধ্রুবতারা সাংস্কৃতিক সংসদ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক অমলেশ শর্ম্মা, মৌলভীবাজার জেলা হোটেল শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ২৩০৫ এর সভাপতি মো. মোস্তফা কামাল, মৌলভীবাজার জেলা রিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন রেজিঃ নং চট্টঃ২৪৫৩ এর সভাপতি মো. সোহেল মিয়া, চা-শ্রমিক সংঘ মৌলভীবাজার জেলা কমিটির আহবায়ক রাজদেও কৈরী, হোটেল শ্রমিকনেতা মো. শাহিন মিয়া ও তারেশ বিশ্বাস সুমন, রিকশা শ্রমিকনেতা মো. গিয়াসউদ্দিন ও মো. জসিমউদ্দিন, চা-শ্রমিকনেতা নারায়ন গোড়াইত প্রমূখ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন মার্কসীয় রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মর্মবস্তু ও আত্মাই হচ্ছে সর্বহারা একনায়কত্বের মতবাদ। কার্ল মার্কস বিশ্বব্যাপী কমিউনিজম প্রতিষ্ঠার অপরিহার্যতা দেখিয়ে তার অংশ হিসাবে, প্রথম ধাপ ও কমিউনিজমের নিম্নতম পর্যায় হিসাবে দেখান সমাজতন্ত্রকে। তিনি সমাজতন্ত্রকে কমিউনিজমের নিম্নতর পর্যায় হিসাবে দেখিয়ে পুঁজিবাদ থেকে শ্রেণিহীন, রাষ্ট্রহীন, পূর্ণ কমিউনিজমের মধ্যবর্তী গোটা সমাজতান্ত্রিক বিপ্লবের পর্যায়ে শ্রেণি সংগ্রাম ও সর্বহারা একনায়কত্বের অস্তিত্বের অনিবার্যতা দেখান। এইভাবে মার্কসবাদ সর্বহারা শ্রেণির বিশ্বদৃষ্টিভঙ্গি ও সমাজ বিপ্লবের বিজ্ঞানে পরিণত হয়েছে। এটা কোন শাস্ত্র বাক্য নয়, এটা হলো কর্মের পথ প্রদর্শক। মার্কসবাদ বিশ্বের সর্বহারা শ্রেণিকে এক অজেয় শক্তিতে বলিয়ান করে গিয়েছে এবং মুক্তির পথ নির্দেশ করেছে। সমাজতন্ত্র কল্পনার বস্তু থেকে বিজ্ঞানে পরিণত হয়েছে। বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রের স্রষ্টা মহামনীষী কার্ল মার্কস ১৮৮৩ সালের ১৪ মার্চ বেলা ২.৪৫ টার সময় মৃত্যুবরণ করেন। কিন্তু আজও বিশ্বের দেশে দেশে শ্রমিক শ্রেণি মহামনীষী কার্ল মার্কসকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।
সেই সাথে শ্রমিক শ্রেণি মুক্তির অজেয় মতবাদ-মার্কসবাদকে ধারণ করে বিশ্বের দেশে দেশে শ্রেণি সংগ্রাম, গণতান্ত্রিক সংগ্রাম, জাতীয় সংগ্রামকে অগ্রসর করে চলেছে। বিশ্বব্যাপী কমিনিউজম প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত শ্রমিক¤্রিেণর এই নিরন্তন সংগ্রাম চলতেই থাকবে।-বিজ্ঞপ্তি