সারাদেশে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১২

24

নিউজ ডেস্ক:: সারাদেশে সোমবার দিবাগত রাত ও মঙ্গলবার ভোরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ১২ জন নিহত হয়েছেন। কুষ্টিয়া, যশোর ও কুমিল্লার মুরাদনগরে ছয়, রাজধানী ঢাকা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ঠাকুরগাঁও, সাতক্ষীরা, বরগুনা ও ময়মনসিংহে একজন করে নিহত হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

রাজধানী : দক্ষিণখানে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ সুমন ওরফে খুকু সুমন নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। গতকাল দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে দক্ষিণখান থানা এলাকার আশিয়ান সিটি মাঠে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, নিহত ওই ব্যক্তি চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী। ঘটনাস্থল থেকে ইয়াবা ও অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। সুমনের নামে দক্ষিণ খান থানায় ৫টি মাদকের মামলা রয়েছে। পুলিশের উত্তরা বিভাগের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (এসি-দক্ষিণখান) মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

যশোর : যশোরে আজ ভোররাতে মাদক ব্যবসায়ীদের মধ্যে কথিত গোলাগুলিতে দুজন নিহত হয়েছেন। তারা হলেন শহরের রায়পাড়া এলাকার মানিক ও মন্ডলগাতি এলাকার আসর আলী। পুলিশ নিহত দুজনের লাশ উদ্ধার করে যশোর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি কেএম আজমল হুদা জানান, জেলা শহরের চাঁচড়া রায়পাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় দু’দল মাদক ব্যবসায়ীর মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দুজনকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসে। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ময়মনসিংহ : ভালুকায় পুলিশের সঙ্গে ‌’বন্দুকযুদ্ধে’ মো. মিজান (৪৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। তিনি একাধীক মামলার আসামি।

বরগুনা : বেতাগীতে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফিরোজ মৃধা নামে এক মামলা ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। আজ ভোররাতে কাজিরাবাদ ইউনিয়নের কুমড়াখালি এলাকায় এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে। বেতাগী থানার ওসি মামুনুর রশিদ জানান, ফিরোজের বিরুদ্ধে নয়টি মাদক মামলা রয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : আখাউড়ায় সহযোগীদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী জনি মিয়া (৩০) নিহত হয়েছেন। গতকাল মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র উদ্ধার করেছে। জনি রেলওয়ে বাগানবাড়ীর ফিরোজ মিয়ার ছেলে। আখাউড়া থানার ওসি মোশারফ হোসেন তরফতার জানান, জনির বিরুদ্ধে আখাউড়া ও অন্যান্য থানায় ৮টি মামলা রয়েছে।

সাতক্ষীরা : কলারোয়ার চিতলার মাঠে গতকাল দিবাগত রাত সোয়া ২টায় দিকে আনিসুর রহমান নামের এক ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। কলারোয়া থানার ওসি বিপ্লব কুমার নাথ জানান, তিনি একজন মাদক ব্যবসায়ী ছিলেন। মাদক ভাগাভাগি নিয়ে নিজেদের মধ্যে গোলাগুলিতে তিনি মারা গেছেন। আনিসুর রহমান (৪০) পাকুড়িয়া গ্রামের সুরত আলির ছেলে।

ঠাকুরগাঁও : হরিপুর উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ হারুন (৪৫) নামে এক মাদক ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। আজ ভোর রাতে উপজেলার শীতলপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। হারুন ওই এলাকার মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে। হরিপুর থানার ওসি রুহুল কুদ্দুস ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, হারুনের বিরুদ্ধে হরিপুর থানায় মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে।

দৌলতপুর (কুষ্টিয়া) : পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক সম্রাট মোকাদ্দেস হোসেন (৩৫) ও ফজলুর রহমান টাইটেল (৫২) নিহত হয়েছেন। উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের শেহালা মাঠে গতকাল দিবাগত রাত সোয়া ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশের দাবি এ ঘটনায় তাদের ৪ সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র, গুলি ও মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। দৌলতপুর থানার ওসি শাহ দারা খান জানান, মাদক দ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একদল মাদক ব্যবসায়ী দৌলতপুরের শেহালা মাঠে অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে পুলিশের একটি টহল দল সেখানে অভিযান চালায়। তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা গুলি ছোড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালালে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই মাদক ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হন। তাদের উদ্ধার করে দৌলতপুর হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।