নবীগঞ্জে তারাবির নামাজের টাকা নিয়ে সংঘর্ষ, আহত দেড় শতাধিক

22

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি ::
নবীগঞ্জ উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের বাঁশডর গ্রামে রমজান মাসে মসজিদের তারাবির নামাজের টাকা নিয়ে দুু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারী-শিশুসহ প্রায় দেড় শতাধিক লোকজন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত অবস্থায় ৩০ জনকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যান্য আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।
এদিকে এঘটনায় এলাকাজুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। গত শনিবার জুন সকালে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ শেষ হওয়ার পর-পরই উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের বাঁশডর গ্রামের মসজিদের সামনে এঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বাউসা ইউনিয়নের বাঁশডর গ্রামের মসজিদে পবিত্র রমজান মাসে তারাবির নামাজ পড়ানোর জন্য সকল মুসল্লিয়ানদের কাছ থেকে খতিম ও মোয়াজ্জিনকে দেয়ার জন্য টাকা উত্তোলন করা হয়। গত শনিবার পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায় করে মসজিদ থেকে বের হয়ে তারাবির নামাজের উত্তোলনকৃত টাকা নিয়ে মসজিদের মোতোয়াল্লী বাশডর গ্রামের আকমল হোসেন লেদুর সঙ্গে একই গ্রামের নাজমুল মিয়ার বাকবিতন্ডা হয়। পরে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় দাঁড়ালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ২ঘন্টা ব্যাপী এ সংঘর্ষে উভয় পক্ষের প্রায় দেড় শতাধিক লোকজন আহত হয়।
এঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসি এস.এম আতাউর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন। পরে আহতদের উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল,নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। আহতদের মধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায় আব্দুল মতিন(৪০),রাসেল মিয়া(২৫),আব্দুল আজিজ (৩৭), আব্দুল আলীম (৬০), আরব আলী (৩৫), আলাল মিয়া (২০), কউছর মিয়া (৫০), নূর আলী (২৫) সহ প্রায় ৩০ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
এবিষয়ের সত্যতা নিশ্চিত করে নবীগঞ্জ থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা ওসি এস.এম আতাউর রহমান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনি, বর্তমান পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।