গোলাপগঞ্জে এক ব্যক্তির রহস্যজনক মৃত্যু

46

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি::
গোলাপগঞ্জে জায়গা নিয়ে পূর্ব বিরোধের জের ধরে আহত এক ব্যক্তি রহস্যজনক মৃত্যু ঘটেছে। নিহত ব্যক্তি উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউপির রায়গড় গ্রামের মৃত তয়াহিদ আলীর পুত্র তুহিন আহমদ (৪৫)। সরজমিনে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে নিহত তুহিনের ভাই জিলাল আহমদ জানান, নিহত তুহিনসহ আমাদের পরিবারের সাথে একই গ্রামের মৃত ময়না মিয়ার পুত্র জাহেদুর রহমান, খালেদুর রহমান গংদের সাথে দীর্ঘদিন থেকে মামলা মোকাদ্দমা চলছিলো। নিহত তুহিন ও তার ভাইয়েরা প্রতিপক্ষ জাহেদুর রহমান, খালেদুর রহমান গংদের ফৌজধারী দায়ের করা মামলায় ওয়ারেন্টকৃত আসামী হিসাবে পলাতক থাকা অবস্থায় কয়েকদিন পূর্বে বিরোধীপক্ষ প্রাণনাশের হুমকী দিলে আমার চাচা শাহাব উদ্দিন পরিবারের সদস্যদের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (নং-৪৩৩-৯/৪/১৮ইং) দায়ের করেন।
নিহত তুহিনের তুহিনের ভাই আরো জানান, গত শুক্রবার রাত প্রায় ৮টায় বাড়ি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পথে ঢাকাদক্ষিণ-সুনামপুর সড়কের রায়গড় মোকামের তল নামক স্থানের ঈদগাহের সম্মুখে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা জাহেদুর রহমান ও খালেদুর রহমান গং তার দলবল নিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায় নিহত তুহিনের উপর। তুহিন মারাত্মক আহত হলে মামলার আসামী হওয়ায় পুলিশের ভয়ে উন্নত চিকিৎসা না নিয়ে তার বড় বোনের বাড়িতে আত্মগোপন অবস্থায় প্রাইভেট চিকিৎসা নেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত সোমবার দুপুরে মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়েন। নিহত তুহিন মৃত্যুকালে স্ত্রী ও ২বছরের এক সন্তানের জনক ছিলেন।
এদিকে তুহিনের মা আকলিমা বেগম(৬৫) কান্না জড়িত কণ্ঠে জানান, আমার পুত্র মৃত্যুর আগে উল্লেখিত হামলাকারীদের নাম বলে গেছে। আমি আমার পুত্র হত্যার বিচার চাই। এ ঘটনার খবর পেয়ে লক্ষণাবন্দ ইউনিয়নের নিজ ঢাকাদক্ষিণ গ্রামের তার বড় বোনের বাড়িতে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম ফজলুল হক শিবলী পরিদর্শন করেন এবং লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। তিনি জানান, ময়নাতদন্ত রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর মূল কারণ উদঘাটন হবে। তদন্তকারী কর্মকর্তা মৃদুল চন্দ্র ভৌমিক জানান, তদন্তের স্বার্থে আপাতত কিছু বলা যাচ্ছে না।