আরিফের ঘরের শত্রু বিভীষণ

114

সবুজ সিলেট ডেস্ক ::
আসন্ন সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি থেকে আরিফুল হক চৌধুরীর মনোনয়ন ঠেকাতে একাট্টা হয়েছেন নির্বাচনে দলের পক্ষে মনোনয়ন প্রত্যাশী অন্যান্য সদস্যরা। একেই বলে ঘরের শত্রু বিভীষণ।

সিলেট সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র ও মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি আরিফুল হক চৌধুরী বর্তমানে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য।

সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) ২০১৩ সালের নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করেন আরিফ। কিন্তু মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে দলীয় কর্মকাণ্ডে তার খুব একটা দেখা মিলছে না বলে অভিযোগ এনে মঙ্গলবার দলটির মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের কাছে অভিযোগ করেন নির্বাচনে অংশগ্রহণে আগ্রহী অন্যান্য প্রার্থীরা।

সিসিকের গেল নির্বাচনে বিএনপি থেকে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আগ্রহী ছিলেন সিলেট মহানগর বিএনপির বর্তমান সভাপতি নাসিম হোসাইন, বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, বর্তমান সহ-সভাপতি আবদুল কাইয়ুম জালালী পংকি ও স্বেচ্ছাসেবক দলের বর্তমান কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি সামসুজ্জামান জামান।

তবে সে বছর আরিফকে দল থেকে মনোনয়ন দেওয়া হলে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকা অন্যান্য প্রার্থীরা তার পক্ষে একাট্টা হয়ে মাঠে কাজ করেন। কিন্তু নির্বাচনে জয়লাভের পর এসব নেতার সঙ্গে দূরত্ব বাড়তে থাকে আরিফের। সেই দূরত্ব ঘুচেনি এখনো।

এদিকে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে আরিফের সুসম্পর্ক থাকাটা নগরবাসী ইতিবাচক হিসেবে নিলেও বিএনপি বিষয়টি নিয়ে আরিফের ওপর ক্ষুব্ধ বলে জানিয়েছে দলটির একাধিক সূত্র।

নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর দলীয় কর্মকাণ্ডে অনিয়মিত হয়ে পড়েন আরিফ। এড়িয়ে চলতে থাকেন দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচি। গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন-পূর্ববর্তী বিএনপির অবরোধ কর্মসূচিতেও ছিলেন না আরিফ। দলীয় আন্দোলন-সংগ্রামে জড়িয়ে বিএনপি নেতা-কর্মীরা ডজন-ডজন মামলার শিকার হলেও আরিফ এ ব্যাপারে নিশ্চিন্ত।

এবছরও সিসিকের নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন সিলেটের সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট মহানগর সভাপতি নাসিম হোসাইন, সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী, সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, সহ-সভাপতি ও প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, মহানগর নেতা ছালাহউদ্দিন রিমন। আসন্ন সিসিক নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন পেতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন তারা।

সিসিকের মেয়র প্রার্থী হতে বুধবার বিএনপির মনোনয়ন কিনেছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম সহ-সভাপতি ও প্যানেল মেয়র রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, মহানগর নেতা ছালাহউদ্দিন রিমন। এর আগে মঙ্গলবার মেয়র প্রার্থী হতে দলীয় মনোনয়নপত্র কেনেন সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী।

বৃহস্পতিবার (২১ জুন) সকল মনোনয়নপত্র জমা শেষে বিকাল সাড়ে ৫ টার পর বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে মনোনয়ন-প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়।

সাক্ষাৎকার শেষে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে মনোনয়ন-প্রত্যাশী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘আমরা সিলেটের সব মনোনয়ন-প্রত্যাশীরা বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন না দিতে দলের নীতি নির্ধারকদের কাছে অনুরোধ করেছি। কারণ তিনি এখন আর বিএনপির নেতা নেই। দলের কোনও কর্মসূচিতে তাকে পাওয়া যায়না। তাই তার বাইরে দল যাকে মনোনয়ন দেবে, আমরা সবাই তার পক্ষ হয়ে নির্বাচনে কাজ করবো বলে এসেছি।’

তিনি বলেন, আমরা বোর্ডকে সকল ব্যাপারে অবগত করে এসেছি। অতীত ও বর্তমান রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বিবেচনা করে মনোনয়ন দেবে, এটা আমাদের বিশ্বাস।’