বিয়ের পর বেশ হাসি খুশি মিঠুন পুত্র

38

বিনোদন ডেস্ক::
মিঠুন পুত্র মিমো এখন বিতর্কের শিরোনামে। কিছুদিন আগেই দিল্লির রোহিণী আদালতের নির্দেশ মেনে জনপ্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীর ছেলে মহাক্ষয় ওরফে মিমোর বিরুদ্ধে ধর্ষণ, প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয়। প্রতারণার মামলা দায়ের করা হয় মিঠুন চক্রবর্তীর স্ত্রী যোগিতা বালির বিরুদ্ধেও। এখনও সেই মামলা শেষ হয়নি। জামিন নিয়ে বাইরে আছেন মিঠুন পুত্র। তারই মাঝে বিয়েটাও সেরে ফেলেন তিনি। প্রথমে নিজের স্বামীকে সঙ্গ না দিলেও পরে মিমোকেই বিয়েটা করেন মাদালসা। আর সেই কারণে বউ এর উদ্যেশ্যে মিমো টুইটারে রোমান্টিক একটি পোস্ট করে লেখেন, ‘তোমার ভালোবাসা আমাকে শক্ত করেছে, তোমার বিশ্বাস আজ আমায় মুক্ত করেছে, এতটা ভালোবাসার জন্য ধন্যবাদ।’

টুইটারে এমন পোস্টকে কেন্দ্র করে নিন্দুকেরা নানা কথা বলছে। যদিও সেদিকে কান দেয়নি কেউই। বিয়ের পর বেশ হাসি খুশি দেখাচ্ছে নব বধূকে। বিয়ের পর দুজনে যে বেশ খোশ মেজাজেই রয়েছেন তা স্পষ্ট।

প্রসঙ্গত, গত ৭ জুলাই বিয়ে হওয়ার কথা ছিল মিমোর। তবে আশঙ্কাও ছিল যে বিয়ের আগেই গ্রেফতার করা হতে পারে মিমোকে। তবে গ্রেফতার না করা হলেও বিয়েটা আর করা হল না মিমোর। বিয়ের আসরে পুলিশ এসে জিজ্ঞাসাবাদ করে মিমো এবং তার মা যোগিতা বালিকে। এ অবস্থায়, বেঁকে বসেন পাত্রী পক্ষ। প্রযোজক সুভাষ শর্মার মেয়ে মাদালসা শর্মার সঙ্গে বিয়ের কথা ছিল মিঠুন চক্রবর্তীর ছেলে মহাক্ষয় চক্রবর্তীর। প্রথমে বিয়েতে রাজি হলেও বিয়ে বাড়িতে এমন কাণ্ডে নাজেহাল হয়ে যান পাত্রী পক্ষ। বিয়ের আসর ছেড়ে চলে যান তারা। পরে যদিও ১০ জুলাই আবারও বসে বিয়ের আসর। সেদিন সম্পন্ন হয় মিমো মাদালসার বিবাহ পর্ব।

প্রসঙ্গত, অভিযোগকারিণীর আইনজীবী রবি সোনি জানিয়েছেন, ‘মহাক্ষয় গত ৪ বছর ধরে চেনেন অভিযোগকারিনীকে। মিমো তার উপর যৌন নির্যাতন করেছেন এবং তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। তার খাবারে ঘুমোর ওষুধ মিশিয়ে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। পাশাপাশি মিমো আমার মক্কেলকে বিয়ের প্রতিশ্রুতিও দিয়ে এসেছিলেন। তবে পরে আমার মক্কেলকে বিয়ে করতে পুরোপুরি অস্বীকার করেন মিমো। তিনি সন্তান সম্ভবা হয়ে পড়লে তাকে জোর করে গর্ভপাত করান মিমো ও তার মা যোগিতা বালি।’