এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্পের উদ্যোগে হাঁসের ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত

20

এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্প (আইডিয়া)-এর সার্বিক সহযোগিতায় এবং স্থানীয় সেবা প্রদানকারী (এলএসপি)-গণের বাস্তবায়নে দোয়ারাবাজার উপজেলার মান্নারগাঁও ইউনিয়নে হাঁসের ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। শনিবার (২৮ জুলাই) দোয়ারাবাজার উপজেলা প্রানিসম্পদ অফিস-এর কারিগরি সহযোগিতায় ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইন-এর আয়োজন করেন এফএনএফ ফার্মাসিউটিকক্যালস লিঃ।

স্থানীয় পর্যায়ে ডিম-এর উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে এবং খাকি কেম্বেল হাঁস পালনে উপকারভোগীদের উৎসাহ প্রদানের জন্য এ ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হয়। ডাক কলেরা ও ডাক প্লেগ রোগের হাত থেকে হাঁস রক্ষা করার পাশাপশি সারা বছর হাঁস পালনের অংশ হিসেবে স্থানীয় সেবা প্রদানকারী (এলএসপি)-গণ এ ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইন-এর প্রথম দিনে ৩০টি পরিবারের ১৮০০টি হাঁসকে ডাক প্লেগ ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য যে, ডাক প্লেগ টিকা প্রদানের ১৫দিন পরে ডাক কলেরা ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে।

স্থানীয় সেবা প্রদনকারী (এলএসপি) রইচ উদ্দিন বলেন, সমষ্টি প্রকল্পের তৈরিকৃত দলগুলোতে তিনি নিয়মিত পরামর্শ প্রদান করেন এবং হাঁসের টিকা প্রদানের উপকারিতার বিষয়টি উপকারভোগীদের সামনে উপস্থাপন করেন যার ফলশ্রুতিতে আজকের এ সফল ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্প অনুষ্ঠিত করা সম্ভব হয়েছে।

এলএসপি সুলতানা দীপু উল্লেখ করেন সমষ্টি প্রকল্প যখন তাদের কার্যক্রম শুরু করে তখন এ এলাকায় যারা হাঁস পালন করতেন তাদের ডাক কলেরা ও ডাক প্লেগ রোগ সম্পর্কে খুব বেশি ধারনা ছিলনা। অধিকাংশ সময় দেখা যেত হাঁস মরা শুরু হলে অল্প দিনের মধ্যেই অধিকাংশ হাঁস মারা যেত। বাকী যে হাঁস থাকত উপকারভোগীরা সেগুলো বিক্রি করে ফেলত কেননা হাঁস পালনকারীদের মধ্যে ভয় থাকত হয়ত বাকীগুলোও মারা যাবে, তাই বিক্রি করে যা পাওয়া যাবে সেটিই লাভ। অনেক হাঁস পালনকারী হাঁস মারা যাওয়ার ভয়ে পরবর্তী বছরে হাঁস পালনে অনাগ্রহ প্রকাশ করত।

বর্তমানে নিয়মিত ভ্যাকসিন প্রদানের পাশাপাশি স্থানীয়ভাবে ডিম বিক্রির জন্য কালেকশন সেন্টার তৈরি করা হয়েছে যেখানে মহিলারা সহজেই তাদের উৎপাদিত ডিম বিক্রি করতে পারে। ফলশ্রুতিতে পরিবহণ খরচ যেমন প্রয়োজন হয়না তেমনি সময়ও কম লাগে। ভ্যাকসিনেশন ক্যাম্পেইনে আরও অংশগ্রহণ করেন এলএসপি সুলতানা দীপু, আইয়ুব আলী, আরশাদ আলী ও প্রনতি রানী। ক্যাম্পেইনে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রকল্পের মনিটরিং অফিসার সামি হক, প্রজেক্ট অফিসার জাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া ও ফিল্ড ফ্যাসিলিটেটর সুজিত কুমার দাশ প্রমূখ। বিজ্ঞপ্তি