হয় ফুল, না হয় মামলা

21

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট পুলিশ যথাযথ কাগজপত্রধারী গাড়ির চালকদের ফুল বিতরণ করেছে। এ সময় মোটরসাইকেলের চালকদের হেলমেটও বিতরণ করা হয়।

‌‌‘হয় ফুল, না হয় মামলা’ স্লোগানে আজ বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় ফৌজদারহাট-বন্দর সংযোগ সড়কের ট্রাফিক বক্স এলাকায় চালকদের ফুল ও হেলমেট বিতরণ করেন সীতাকুণ্ডের ট্রাফিক পরিদর্শক (টিআই) রফিক আহম্মদ মজুমদার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সীতাকুণ্ড সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শম্পা রানী সাহা, সলিমপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান সালাউদ্দীন আজিজ, ভাটিয়ারী ইউপির চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দীন, সার্জেন্ট সাইফুল ইসলাম ও কালুশাহ বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের গার্ল গাইডস ও বিএনসিসির ছাত্রীরা।

জেলা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ সূত্র জানায়, আজ বুধবার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ডে ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, কাগজপত্র যথাযথ না থাকায় মোট ২৩৫টি মামলা করে পুলিশ। এর মধ্যে সীতাকুণ্ড থানা ৪৫টি, বার আউলিয়া হাইওয়ে থানা ৬০টি, ফৌজদারহাট পুলিশ ফাঁড়ি ১০০টি ও কুমিরা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ৩০টি মামলা করে।

এ ব্যাপারে টিআই রফিক আহম্মদ মজুমদার বলেন, যেসব গাড়ির ও চালকের কাগজপত্র সঠিক ছিল, তাঁদের তাঁরা ফুল দিয়ে অভিবাদন জানিয়েছেন। এ ছাড়া যেসব মোটরসাইকেলের চালকদের কাগজপত্র সঠিক কিন্তু হেলমেট ছিল না, তাঁদের হেলমেট বিতরণ করেছেন। গতকাল তাঁরা ১২টি হেলমেট বিতরণ করেছেন। এ ছাড়া যাঁদের কাগজপত্র যথাযথ ছিল না, তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। এ অভিযান ১১ আগস্ট পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

এসআই সাইফুল ইসলাম বলেন, এখন মহাসড়কে চলাচলকারী গাড়ির বেশির ভাগেরই কাগজপত্র ঠিক আছে। গতকাল পাঁচ শতাধিক গাড়ির কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হয়েছে। তার মধ্যে ১০০টি গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে।