আদিবাসী দিবসে সিলেটে ‘একডো’র র‌্যালি

7

আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উপলক্ষে সিলেটে এথনিক কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (একডো) এর উদ্যোগে র‌্যালির আলোজন করে। বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উপলক্ষে সকাল ১০টায় শহরের প্রধান প্রধান সড়কগুলোতে প্রদক্ষিণ করে।

র‌্যালিতে সিলেটের মণিপুরী, পাত্র, গারো, খাসি, ওরাঁও ও চা শ্রমিক আদিবাসী জনগোষ্ঠীর নারীপুরুষসহ স্থানীয় সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন।

স্থানীয় সুশীল সমাজ প্রতিনিধিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সুজন সিলেট জেলা কমিটির সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট জেলার সাধারন সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সাংস্কৃতি কর্মী এডভোকেট মনির হেলাল, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) সহকারি এরিয়া ম্যানাজার আশফাকুন নূর প্রমূখ। তাছাড়া আদিবাসী জনগোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আয়োজন সংস্থা একডো’র নির্বাহী পরিচালক লক্ষ্মীকান্ত সিংহ, রথযাত্রা উদযাপন কমিটি সম্পাদক নৃপেন্দ্র সিংহ, টিডব্লিউএএস’র সভাপতি জোসেফ হাউই, সাংস্কৃতি ও মানবাধিকার কর্মী নোংপকলৈ সিনহা, সাংস্কৃতি কর্মী যোগেশ্বর সিংহ, মানবাধিকার কর্মী মিলন ওরাঁও, সারতি ওরাঁও, শিপা ওরাঁও, ডা: সুরেশ সিংহ, বুধচন্দ্র শর্ম্মা প্রমূখ। দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত এ র‌্যালি শেষে আয়োজক সংস্থা একডো’র পক্ষ থেকে সিলেট অঞ্চলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর পক্ষে সরকারের নিকট আদিবাসী জনগোষ্ঠীর উেন্নয়নের জন্য দশ দফা দাবি তুলে ধরেন।

তাদের উত্থাপিত দাবিগুলো হচ্ছে- সমতল অঞ্চলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জন্য পৃথক একটি মন্ত্রণালয় গঠন। পার্বত্য চট্টগ্রাম ব্যতিত সমতল অঞ্চলের আদিবাসীদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর তহবিলের বরাদ্দ বৃদ্ধি করা। জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এর আলোকে দেশের সকল আদিবাসী জনগোষ্ঠীর নিজস্ব মাতৃভাষায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠ্যক্রম প্রকাশনা এবং পাঠদান চালু করা। সিলেট শহরে আদিবাসী বিষয়ক একটি পৃথক ইনস্টিটিউট গড়ে তোলা। একটি সহজ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আদিবাসীদের ভূমি সংক্রান্ত সকল বিরোধ নিষ্পত্তি করা। আদিবাসী জনগোষ্ঠীর আর্থিক সংকট নিরসনের জন্য আদিবাসী তরুণ তরুণীদের নিয়ে বিভিন্ন আয়বর্ধক প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন। আদিবাসীদের জন্য একটি আদিবাসী সুরক্ষা আইন প্রণয়ন। চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নের জন্য একটি বিশেষ তহবিল গঠন করা। মহান জাতীয় সংসদে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলের আদিবাসী জনগোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার জন্য একটি সংরক্ষিত আসন চালু করা। আদিবাসীদেরকে ’আদিবাসী’ হিসেবে সাংবাধানিক স্বীকৃতি প্রদান।-বিজ্ঞপ্তি