সিসিক নির্বাচন : রাত পোহালেই পুনঃভোট গ্রহন

170

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে (সিসিক) অনিয়মের অভিযোগে স্থগিত হওয়া দুই কেন্দ্রে শনিবার ফের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ উপলক্ষে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন। ইতোমধ্যে কেন্দ্রে কেন্দ্রে নির্বাচনী সরঞ্জামও পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। ৩০ জুলাই নির্বাচনে ৪ হাজার ৬২৬ ভোটের ব্যবধানে এগিয়ে থাকা বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন। দুটি ভোটকেন্দ্রে ১৬২ ভোট পেলেই তিনি বিজয়ী হবেন।
বৃহস্পতিবার আরিফুল হক প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সাথে দেখা করে ওই ২ কেন্দ্রের প্রায় ৩’শ জন মৃত ভোটার ও প্রবাসীর তালিকা হস্তান্তর করেছেন। সিইসিও বিষয়টি দেখার আশ্বাস দিয়েছেন। এ কারণে নির্বাচনে ভোটগ্রহণ কেবল আনুষ্ঠানিকতা মাত্র বলে মনে করছেন সিলেট নগরবাসী। শনিবার সিসিক নির্বাচনের ১১৬ নং গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ১৩৪ নং হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে।

সিসিক নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আলীমুজ্জামান বলেন, ভোটগ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষে আমরা কাজ করে যাচ্ছি

এদিকে দুই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ উপলক্ষে ওই নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে পুলিশ প্রশাসন। একই সঙ্গে বৈধ অস্ত্র বহন, যান্ত্রিক যান/নৌ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) আবদুল ওয়াহাব বলেন, স্থগিত হওয়া দুটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ উপলক্ষে গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছে এসএমপি। এতে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ ও বৈধ অস্ত্র বহনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। গত ৩০ জুলাই সিসিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অনিয়মের অভিযোগে নগরীর ২৪ নং ওয়ার্ডের গাজী বুরহান উদ্দিন গরম দেওয়ান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (নারী-পুরুষ) এবং ২৭ নং ওয়ার্ডের হবিনন্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (নারী-পুরুষ) কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচনে ২৭টি ওয়ার্ডে ১৩৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ১৩২টির ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী আরিফুল হক চৌধুরী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯০ হাজার ৪৯৬ ভোট। আওয়ামী লীগ প্রার্থী বদর উদ্দিন আহমদ কামরান নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৮৭০ ভোট।

১৩২ কেন্দ্রের ফলাফলে চার হাজার ৬২৬ ভোটে আরিফুল হক চৌধুরী এগিয়ে থাকলেও এ দুই কেন্দ্রের মোট ভোট ৪ হাজার ৭৮৭। সে হিসেবে স্থগিত কেন্দ্রের ভোটের চেয়ে ১৬১ ভোট পিছিয়ে আরিফ। যে কারণে নির্বাচন কমিশন কেন্দ্র দু’টিতে ফের নির্বাচন ঘোষণা করে।

এছাড়া আজ সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডে (১৯, ২০ ও ২১) দু’জন প্রার্থীর মধ্যেও নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ওই ওয়ার্ডে সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী নাজনীন আক্তার কনা (জিপগাড়ি) ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নার্গিস সুলতানা (চশমা) ৪ হাজার ১৫৫ ভোট করে সমান পেয়েছেন। তাই সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে আবার নির্বাচন হচ্ছে।