আল্লামা বারকোটি হুজুরের ইন্তেকাল, দাফন সম্পন্ন

89

জানাজার নামাজে হাজারো মানুষের ঢল

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি
দেশের বরেণ্য আলেম শায়খুল হাদিস এবং আযাদ দ্বীনী এদারায়ে তালিম বাংলাদেশের বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সাবেক সহ-সভাপতি আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকোটির ইন্তেকাল (৯৫) করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি……..রাজিউন)।

তিনি গত শনিবার রাত ১১টা ৪৫ মিনিটের সময় ঢাকাদক্ষিণ ইউপির বারকোট দিলাল খাঁ গ্রামের নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। প্রখ্যাত আলেম হযরত মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটি’র মৃত্যুতে সর্বমহলে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

মরহুমের জানাযার নামাজ গতকাল রোববার বাদ আছর বারকোট হুসাইনিয়া মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এসময় মরহুমের জানাযায় হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে। এসময় মাদ্রাসা মাঠ, মাদ্রাসা ভবনের ছাদ, রাস্তাসহ পুরো এলাকা মানুষের সমাগমে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়। জানাযায় রাজনৈতিক, বিভিন্ন মাদ্রাসার মুহতামিম, শায়খুল হাদীস, মুফতি, বিভিন্ন মাদ্রাসার হাজারো ছাত্র-শিক্ষক, বিভিন্ন পেশাজীবী, সামাজিক অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লক্ষাধিক মানুষ অংশ নেন। জানাযার নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের জামাতা আযদ উদ্দিন নোমান। জানাযা শেষে মরহুমের লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। শায়খুল হাদীস হুসাইন আহমদ বারকোটী ১৯২৪ সালে উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ বারকোট গ্রামে জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা আব্দুল গফুর ও মাতা ফয়জুন নেছা। মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটি পড়ালেখা শেষে তিনি রাণাপিং মাদ্রাসায় শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন।

পরবর্তীতে বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর মাদ্রাসা, সিলেট শহরের দরগাহ মাদ্রাসা, নিজ গ্রামের বারকোট মাদ্রাসায় শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি বারকোট মাদ্রাসার মুহতামিমের দায়িত্ব ছিলেন।

এছাড়াও তিনি বিয়ানীবাজার উপজেলার দেউলগ্রাম মাদ্রাসার মুহতামিম ও ঢাকাদক্ষিণ দারুল উলুম হুসাইনিয়া মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত মুহতামিমের দায়িত্ব পালন করেন। শায়খুল হাদীস হোসাইন আহমদ বারকোটি দেউলগ্রাম মাদ্রাসা, ঢাকাদক্ষিণ মাদ্রাসা, সৈয়দপুর মাদ্রাসা, রামধা মাদ্রাসা ও মেওয়া মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস হিসেবে শিক্ষাদান করেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি মাওলানা হোসাইন আহমদ বারকোটি রাজনীতিতেও সক্রিয় ছি‌লেন। তিনি দেশ স্বাধীনের পূর্ব থেকেই জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সাথে জড়িত। ১৯৭১ সালে মাওলানা বশির আহমদ শায়খে বাঘা (রঃ) এর মৃত্যুর পর থেকে অসুস্থ হওয়ার আগ পর্যন্ত গোলাপগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। এছাড়া কেন্দ্রীয় জমিয়তের সহ-সভাপতির পাশাপাশি দীর্ঘদিন সিলেট জেলা জমিয়তের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। মৃত্যুকালে তিনি ৫ছেলে, ২মেয়ে, স্ত্রী ও দেশ বিদেশে হাজারো ছাত্র এবং অসংখ্য গুনাগ্রাহী রেখে গেছেন।