‘বারকুটী হুজুরের মতো বিচক্ষণ আলেমের খুবই প্রয়োজন’

20

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী বলেছেন, আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকুটী ছিলেন একজন বিচক্ষণ, দূরদর্শী আলেমেদ্বীন। দেশ এবং জাতির যে কোন সংকটে উলামায়ে কেরামদেরকে দিক নির্দেশনার মাধ্যমে উলামায়ে কেরামদেরকে জাতির খেদমত ও সংকটে দেশের পাশে রাখতেন। তিনি ইলমে হাদিসের খেদমতে অসংখ্য প্রতিষ্ঠানে শায়খুল হাদীসের দায়িত্ব পালন করেছেন। আধ্যাত্মিক জগতে ইমামে মদনী, শায়খুল মাশায়েখ, আল্লামা আব্দুল করিম, শায়খে কৌড়িয়ার ইজাজত প্রাপ্ত খলিফা ছিলেন। তিনি উলামায়ে কেরামদেরকে আযাদ দ্বীনি এদারায় (কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড) মাধ্যমে তিনি উলামা কেরামদেরকে ঐক্যবদ্ধ রেখেছেন। রাজনৈতিক ময়দানে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মাধ্যমে উলামায়ে কেরামদেরকে রাজনৈতিক সচেতনতার পাশাপাশি জাতির খেদমতে অংশীদারিত্বের জন্য সব সময় তাগিদ এবং প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতেন। তার ইন্তেকালের মধ্য দিয়েই দারুল উলুম দেওবন্দের চিন্তা চেতনতার এক উজ্জ্বল নক্ষত্রকে হারালো। দেশ এবং জাতির সংকটময় মুহূর্তে আল্লামা বারকুটী হুজুরের মতো বিচক্ষণ আলেমের খুবই প্রয়োজন।

গতকাল সোমবার কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সোলেমান হলে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের অন্যতম সহ সভাপতি, আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তালীম বাংলাদেশের সাবেক সভাপতি উস্তাদুল মুহাদ্দিসীন আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকুটী হুজুর (রহ.) ও নয়াসড়ক মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মাওলানা ফিরোজ আলী (রহ.) এর স্মরণ সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

সিলেট মহানগর ছাত্র জমিয়তের আহ্বায়ক ছাত্রনেতা হাফিজ সাব্বির আহমদ রাজির সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব হাফিজ খলিলুল্লাহ মাহবুব এবং ছাত্রনেতা আব্দুল হাই এর যৌথ পরিচালনায় প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন, জমিয়তের কেন্দ্রীয় আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক আন্তর্জাতিক অঙ্গনের পরিচিত মুখ মাওলানা জয়নাল আবেদীন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি ও ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শীর্ষ নেতা এডভোকেট মাওলানা আব্দুর রকীব, জমিয়তে উলামা ইসলাম সিলেট মহানগরের অন্যতম সহ সভাপতি যথাক্রমে প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা খলিলুর রহমান ও মুফতি আলতাফুর রহমান, শায়খুল হাদীস মাওলানা আশরাফ আলী মিয়াযানী, মহানগর জমিয়তের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুবকর সিদ্দীক সরকার, ছাত্র জমিয়ত বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এম. বেলাল আহমদ চৌধুরী।

অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাওলানা রফিক আহমদ মহল্লী ও হাফিজ মাওলানা আহমদ ছগীর বিন আমকুনী, জেলা যুব জমিয়তের সদস্য সচিব মাওলানা আব্দুল হক মওদুদ, মহানগর সাধারণ সম্পাদক মুফতী জাকারিয়া মাহমুদ, জেলা ছাত্র জমিয়তের আহ্বায়ক কায়সান মাহমুদ আকবরী, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্র জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক শেখ আলবাব হোসেন, সিলেট জেলা সদস্য সচিব জাফর ইকবাল, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা আবুল কাসেম রাজাগঞ্জী, ছাত্রনেতা ওলিউর রহমান, হাফিজ নুরুল হুদা, মাওলানা শামসুজ্জামান, মাওলানা বজলুর রহমান সোহান, আব্দুল্লাহ আল নোমান, হাফিজ আবু তাহের, হাফিজ মাহমুদ, ইব্রাহিম খলিল, মুহাফিজুল ইসলাম সাকিব, আব্দুল্লাহ মাহফুজ, আব্দুল্লাহ মাহমুদ, ইউসুফ আল আজাদ, মাহমুদুল হাসান, ফুয়াদ আহমদ প্রমুখ। সভার শুরুতে পবিত্র কালামে পাক থেকে তেলাওয়াত করেন ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় নেতা হাফিজ আব্দুল্লাহ মাসরুর ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মহানগর জমিয়তের সহ সভাপতি মুফতি আলতাফুর রহমান।-বিজ্ঞপ্তি