সিসিকের বর্জ্য অপসারণের কাজ সম্পন্ন

15

স্টাফ রিপোর্টার
পবিত্র ঈদ উল আযহা উপলক্ষে নগরীতে সৃষ্ট কোরবানির পশুর বর্জ্যরে পাশাপাশি চামড়া ব্যবসায়ীদের জড়ো করা চামড়া থেকে উদ্ভূত সকল প্রকার বর্জ্য ১৮ ঘণ্টার মধ্যে অপসারণ করেছে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক)। বুধবার দুপুর ২টা থেকে বর্জ্য অপসারণের কাজে থাকা সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ১৯শ পরিচ্ছন্নতা কর্মী রাতভর কাজ করে সিলেট নগরীকে বর্জ্যমুক্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। তাদের সার্বক্ষণিক তদারকিতে ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা হানিফুর রহমান।

অন্যদিকে চামড়া ব্যবসায়ীদের রাস্তায় জড়ো করে রাখা চামড়ার কারণে উদ্ভূত বর্জ্যও অপসারণ করে সিলেট সিটি কর্পোরেশন। দুর্গন্ধমুক্ত রাখার জন্য সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নকর্মীরা রাস্তা ব্লিচিং পাউডার ও পানি দিয়ে পরিষ্কার করেছে।

নগর ভবনের কর্মকর্তারা জানান, কোরবানির বর্জ্য অপসারণের পাশাপাশি বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে নগরীর বৈধ হাটের সাথে নগরীর আনাচে-কানাচে গড়ে উঠা সকল অবৈধ পশুর হাটের আবর্জনাও পরিষ্কার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশরেন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা হানিফুর রহমান জানান, কোরবানির পর পশুর বর্জ্য দ্রুত সরিয়ে নেওয়ার জন্য সিলেট সিটি কর্পোরেশন সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং প্রায় ১৮ ঘণ্টায় নগরী পরিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছে। এছাড়া নগরীর অলিগলিতেও কোন বর্জ্য বা দুর্গন্ধযুক্ত পরিবেশ বিরাজ করছে কী না তা-ও খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

তিনি জানান- ১৯’শ পরিচ্ছন্নতাকর্মী, বর্জ্যবাহী ট্রাক এবং পানির গাড়ি নিয়ে শনিবার সকাল থেকে বর্জ্য অপসারণে রাতভোর কাজ করেছে সিটি করপোরেশন। যার ফলেই আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার মধ্যে নগরী থেকে বর্জ্য অপসারণ সম্ভব হয়েছে।

হানিফ আরো বলেন- নগরবাসীর প্রতি আমার আহবান আমাদের কাজ শেষ হওয়ার পরও যদি কোন যায়গায় অলিগলিতেও কোন বর্জ্য বা দুর্গন্ধযুক্ত পরিবেশ চোখে পরে সাথে সাথে আমাদেরকে জানাবেন। আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নিতে প্রস্তুত আছি।