অভিষেক টেস্টকে স্মরণীয় করতে প্রস্তুত হচ্ছে সিলেট

217

বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে ঐতিহাসিক ম্যাচ ৩ নভেম্বর

মোস্তাফিজ রোমান
টেস্টকে বলায় হয় ক্রিকেটের মুল ঐতিহ্য, সবচেয়ে মর্যাদার ফরম্যাট। সেই মর্যাদার ফরম্যাটের সাক্ষী হতে যাচ্ছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যের লীলাভূমি সিলেটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। আগামী ৩ নভেম্বর বাংলাদেশ জিম্বাবুয়ের ১ম ম্যাচের টস দিয়ে এই স্টেডিয়াম নাম লেখাবে বুনিয়াদি তালিকায়। জিম্বাুয়ের সিরিজের জন্য বিসিবি ভেন্যুর তালিকায় সিলেটের নাম রাখায় খুশির জোয়ার বয়ে যায় স্থানীয় ক্রীড়াপ্রেমীদের মাঝে। সবাই এখন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন ৩ নভেম্বরের সেই মহেন্দ্রক্ষণের। ক্রীড়াপ্রেমীদের এই আনন্দকে দ্বিগুণ করতে বিসিবি আর সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থাও নিচ্ছে নানা উদ্যোগ। ক্যালেন্ডারের পাতায় প্রায় দু’মাস থাকলেও ৫ দিনের অভিষেক ম্যাচকে সম্মরণীয় করে রাখতে পরিকল্পনার চক কষছেন ক্রিকেট কর্তারা। অন্যদিকে এ বছরই শেষের দিকে ওয়েষ্ট ইন্ডিজের সাথে ওয়ানডে অভিষেকও হচ্ছে সিলেটের-এমনটাই জানাচ্ছে বিসিবি।

অক্টোবরেই দু’টি টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলতে বাংলাদেশে আসবে জিম্বাবুয়ে। সিরিজের প্রথম টেস্টটি হবে সিলেটে। ঐ ম্যাচ দিয়ে সিলেট স্টেডিয়ামের টেস্ট অভিষেক হবে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ের সিরিজের সূচি ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। আগামী ১৬ অক্টোবর ঢাকায় আসবে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল। ১৯ অক্টোবর সাভারের বিকেএসপিতে সীমিত ওভারের প্রস্তুুতিমূলক ম্যাচ খেলবে জিম্বাবুয়ে। ২১ অক্টোবর থেকে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শুরু করবে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ে। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে। ২৪ ও ২৬ অক্টোবর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে হবে সিরিজের শেষ দুই ওয়ানডে। টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে চট্টগ্রামেই একটি তিন দিনের প্রস্তুুতি ম্যাচ খেলে সিলেটে উড়ে আসবে জিম্বাবুয়ে। এখানে ৩ নভেম্বর থেকে শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট। ১১ নভেম্বর থেকে মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে।

চা-বাগান ঘেরা সিলেট স্টেডিয়াম প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে কারণে এরমধ্যেই ক্রিকেট সংশ্লিদের নজর কেড়েছে। এখানেই আছে দেশের একমাত্র ‘গ্রিন গ্যালারি’। অনিন্দ্য সুন্দর সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম মুগ্ধতা ছড়ায় বিগত বিশ্বক্রিকেটের অন্যতম টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ আসরেই। দেশ-বিদেশে ব্যাপক পরিচিত পায় মাঠটি। প্রশংসা কুড়ায় সকলের। সর্বশেষ বিপিএলেরও বেশ কয়েকটি ম্যাচ হয়েছে এই স্টেডিয়ামে। সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে যাত্রা শুরু করে ২০১৪ তে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেই। তবে চলতি বছর শ্রীলংকার সাথে সিরিজের একটি টি-টুয়েন্টি ম্যাচে প্রথমবারের মতো এ মাঠে নামে টাইগাররা।

কলেজ ছাত্র খন্দকার ফাহিম টেস্ট ম্যাচের ভেন্যুর অভিষেক হতে যাওয়া নিয়ে বেশ উচ্ছাসিত। তাঁর কথা এটা সিলেটবাসীর জন্য‘ বেশ বড় সুখবর’। স্থানীয় স্টেডিয়ামকে শুধু দেশের নয় বিশ্বের অন্যমত সেরা স্টেডিয়াম অবহিত করে তিনি জানান এখানে যে দলই আসুক না কেনো তারা স্টেডিয়ামের সৌন্দর্য্যে মুগ্ধ হবেই। টেস্টের ভেনে্যুর তালিকায় নাম রাখায় বিসিবির প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মাস্টার্সের ছাত্রী শারমিন আজাদ জানান এখানে যেনো নিয়মিত ম্যাচ হয়। তাহলে এর সৌন্দর্য্যের কথা সারাবিশ্বের মানুষ জানতে পারবে। স্টেডিয়ামটি হতে পারে দেশের পর্যটন শিল্পেরও অন্যতম বিজ্ঞাপন।

সিলেটে প্রথম টেস্ট ম্যাচকে স্মরণীয় করে রাখতে ভিন্ন কিছুর চিন্তা রয়েছে বলে জানান বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। তিনি জানান, সিলেটের দর্শকরা টিকেটের জন্য যাতে সমস্যায় না পড়েন তাই টেস্ট ম্যাচের টিকেট অনলাইনের পাশাপাশি স্টেডিয়ামে টিকেট কাউন্টারেও বিক্রি করা হবে। তাছাড়া নিরাপত্তার বিষয়টা আইন শৃংখলা বাহিনী দেখ-ভাল করবেন। এ ব্যাপারে প্রশাসনের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত হবে।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের অষ্টম টেস্ট ভেন্যু হিসেবে অভিষেক হবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের। ঢাকায় ২টি, চট্টগ্রামে ২টি, ফতুল্লা, খুলনা আর বগুড়ায় ১টি করে স্টেডিয়াম টেস্ট ভেন্যুর তালিকায় স্থান পেয়েছিল।