কানাইঘাটে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, আহত ১৪, পাল্টাপাল্টি মামলা

25

কানাইঘাট প্রতিনিধি
কানাইঘাটে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অনন্ত ১৫জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় উপজেলার সদর ইউপির চটিগ্রামে ১ একর ফসলি জমি নিয়ে এ সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে এবং উভয় পক্ষ থানায় পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করেছেন। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, চটিগ্রামের মৃত সামছুল হকের পুত্র মুসলিম উদ্দিন (৬০) ও একই গ্রামের মৃত রশিক বিশ্বাসের ছেলে রবিন্দ্র বিশ্বাস গংদের মধ্যে দীর্ঘ দিন থেকে ফসলি জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে।

ধানের চারা রোপনকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এ সংঘর্ষে মুসলিম উদ্দিন সহ তার পক্ষের ৬জন গুরুতর আহত হন।

তারা হলেন, মৃত সমছুল হকের পুত্র শামীম আহমদ, ফয়েজ উদ্দিনের স্ত্রী কমলা বেগম, তার পুত্র আহমদ আলী, মুসলিম উদ্দিনের পুত্র বোরহান উদ্দিন ও স্ত্রী হোসনে আরা বেগম। অপর পক্ষের রবিন্দ্র কুমার বিশ্বাস সহ ৮জন গুরুতর আহত হয়েছেন, তারা হলেন মৃত রজনি বিশ্বাসের পুত্র পুলিন্দ্র বিশ্বাস, মৃত রশিক কুমার বিশ্বাসের পুত্র রাজ কুমার বিশ্বাস, অর কুমার বিশ্বাস, গিরিন্দ্র বিশ্বাস, অনিল বিশ্বাস, ভক্ত বিশ্বাস ও মৃত কুলন বিশ্বাসের পুত্র পরেশ বিশ্বাস। উভয় পক্ষের গুরুতর ৬জনকে সিওমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে, বাকিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। এ বিষয়ে উভয় পক্ষ পরস্পর বিরোধী বক্তব্য দিয়েছেন।

মুসলিম উদ্দিন জানান, তাদের হাল চাষ করা দখলীয় জমিতে রবিন্দ্র কুমার বিশ্বাস গংরা ধানের চারা রোপন করতে থাকে। এতে তারা বাঁধা প্রদান করলে রবিন্দ্র কুমার গংরা তাদের উপর হামলা চালিয়ে তাদেরকে আহত করেছেন বলে তিনি দাবী করেন।

অপরদিকে রবিন্দ্র কুমার বিশ্বাস জানান, তাদের দখলীয় জমিতে ধানের চারা রোপন করতে গেলে মুসলিম উদ্দিন গংরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এ হামলায় তার পরিবারের লোকজন গুরুতর আহত হয়েছেন। এ ব্যাপারে কানাইঘাট থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. নুনু মিয়া জানান, তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।