মাদ্রাসা বাজার-দয়ামীর সড়ক সংস্কারে তিন কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন

38

ওসমানীনগর প্রতিনিধি
সিলেটের বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগর উপজেলার জনসাধারণের চলাচলের দয়ামীর-মাদ্রাসা বাজার-দেওয়ানবাজার সড়কটি দির্ঘ দিন ধরে যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। এই সড়কে দেখা দিয়েছে চরম জনদূর্ভোগ। এটি বালাগঞ্জ উপজেলার উত্তরাঞ্চল এবং ওসমানীনগর উপজেলার পূর্বাঞ্চলের প্রায় অর্ধ শতাধিক গ্রামবাসীর চলাচলের অন্যতম রাস্তা হিসেবে গুরুত্ব বহন করে আসছে। সামান্য বৃষ্টিপাত হলেই সড়কের গর্তগুলোতে ছোটবড় যাত্রীবাহি যানবাহনগুলো আটকা পড়ছে। দীর্ঘদিন সড়কটিতে সংস্কার না হওয়ায় জনসাধারণের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে।

তবে আশার কথা হলো রাস্তাটি সংস্কার কাজের জন্য প্রায় তিন কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে বলে উপজেলা এলজিইডি অফিস সূত্রে জানা গেছে। টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেই শিগগিরই সংস্কার কাজ শুরু করা হবে।

সরেজমিন পরিদর্শনকালে দেখা গেছে- সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের দয়ামীর-চকের বাজার থেকে মাদ্রাসা বাজার পর্যন্ত রাস্তাটির দৈর্ঘ্য প্রায় সাড়ে ৪ কিলোমিটার এবং দেওয়ানবাজার পর্যন্ত দৈর্ঘ্য প্রায় ৭ কিলোমিটার। সড়কের একাধিক স্থানে কার্পেটিং ওঠে গিয়ে বড়-বড় গর্ত ও অসংখ্য খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। সড়কের ওসমানীনগর অংশের ইছামতি গ্রাম হতে বালাগঞ্জের মাদাসাবাজার পর্যন্ত প্রায় আড়াই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে স্থানে-স্থানে ডুবা আকৃতির অসংখ্য-অগণিত গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার এই আড়াই কিলোমিটার অংশে স্থানীয়দের সহযোগীতায় বড়বড় গর্তগুলো মাটি ভরাট করে যানবাহন চলাচল অব্যাহত রাখলেও সংস্কারের অভাবে জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে- প্রায় দু’বছর আগে সড়কটি সংস্কার করা হলেও নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় সংস্কার কাজ শেষ করার সাথে-সাথেই রাস্তাটি বেহাল হয়ে পড়ে। এমতাবস্থায় রাস্তাটি ভারী যানবাহনের চাপ নিতে না পারায় আরো দুরবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সড়কের আতা উল্যা গ্রাম এলাকায় ভারী যানবাহনের প্রবেশ ঠেকাতে একসময় একটি স্টিলের তুরণ বসানো হলেও কথিপয় স্বার্থন্বেসীরা সেটি অপসারণ করে ফেলেন।

অটোরিক্সা চালক বিলাল মিয়া ও জয়নাল আহমদ বলেন- বড়-বড় গর্ত আর ভাঙনের কারণে প্রতিদিনই গাড়ীর মূল্যবান যন্ত্রাংশগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এই রাস্তা দিয়ে চালকরা গাড়ী চালাতে আগ্রহী হননা, কিন্তু যাত্রীদের অনুরোধে আমাদেরকে গাড়ী চালাতে হয়।

অটোরিক্সা শ্রমিক ইউনিয়নের মাদ্রাসা বাজার শাখার দায়িত্বপ্রাপ্ত কয়েকজন জানান- চালকদের কাছ থেকে টাকা তুলে সড়কের গর্তগুলো মাটি ও ইট দিয়ে ভরাট করা হলেও মালাবাহি ভারী যানবাহনগুলো চলাচলের কারণে দিনদিন রাস্তাটি আরো বেহাল হচ্ছে। জনসাধারণের কথা চিন্তা রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করা এখন সময়ের দাবি।

মাদ্রাসা বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান- এই সড়ক দিয়ে তারা দোকানের পণ্য সামগ্রী আনতে হয়। কিন্তু রাস্তার বেহাল অবস্থার কারণে অধিক হারে তাদেরকে পরিবহন ভাড়া বহন করতে হচ্ছে।

বালাগঞ্জ উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলীর দায়িত্বে থাকা উপজেলা এলজিইডি সহকারী প্রকৌশলী আনোয়ারুল ইসলাম বলেন- সংস্কার কাজের জন্য প্রায় তিন কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলেও কাজ শুরু হবে।