কোম্পানীগঞ্জে ডাকাতি, আহত ৩

26

স্টাফ রিপোর্টার
কোম্পানীগঞ্জে আবারো ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। রোববার রাতে বর্ণি এলাকার কাটাখাল ব্রীজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ডাকাত দল মুখে কাপড় বেঁধে ৩ মোটরসাইকেল আরোহীর উপর হামলা চালায়। হামলায় তারা গুরুতর আহত হলে তাদেরকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করা হয়।

ডাকাত দলের হামলায় গুরুতর আহতরা হলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পাড়ুয়া নোয়াগাও গ্রামের সাবির মিয়ার পুত্র দিলোয়ার মিয়া, পাড়ুয়া মাঝপাড়া গ্রামের মৃত ফজর উদ্দিনের পুত্র সামাদ আলী ও মৃত জফুর আলীর পুত্র রহমত আলী।

জানা যায়, রোববার রাতে সিলেট থেকে এক মোটরসাইকেল যোগে কোম্পানীগঞ্জ যাচ্ছিলেন দিলোয়ার, সামাদ ও রহমত আলী। বর্ণি এলাকার কাটাখাল ব্রীজে যাওয়া মাত্র ৫/৬ জন মুখোশধারী ডাকাত তাদের রাস্তা গতিরোধ করে। ডাকাতদলের হামলায় মোটরসাইকেল সহ আরোহীরা রাস্তার নিচে পড়ে যায়। এসময় ডাকাতদল রামদা দিয়ে সামাদ আলীর মাথায় আঘাত করলে রামদার আঘাতটি তার মাথায় থাকা হ্যালমেটে পড়ে। পরবর্তীতে সামাদ আলীকে রামদা দিয়ে আরেকটি আঘাত করতে চাইলে দিলোয়ার তার হাত দিয়ে প্রতিহত করতে গেলে তার হাত গুরুতরভাবে কেটে যায়। ডাকাতদল দেলোয়ারে বাম হাত ভেঙ্গে ফেলে। ডাকাতদলের কাঠের রুলের আঘাতে রহমত আলীর দাঁত ভেঙ্গে যায়। ডাকাতদলের হামলায় তারা মাটিতে লুটিয়ে পড়লে নগদ ১৫ হাজার টাকা, ব্যাংকের চেক, ২টি মোবাইল ফোন সহ জরুরী কাগজপত্র নিয়ে যায়। ঘটনার দীর্ঘক্ষণ পরে থানা পুলিশের টহল টিম ঘটনাস্থলে পৌছে আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যেতে সামাদকে পরামর্শ দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সামাদ আলী জানান, ডাকাতদলের কাউকে চিনতে পারেননি। তারা মুখোশ পড়ে হামলা করেছিল। এ ঘটনায় অভিযোগ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

কোম্পানীগঞ্জে ঘনঘন ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও থানা পুলিশের ভূমিকা রহস্যজনক। যার কারনে ডাকাতদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেনা পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চরম অবনতির জন্য কোম্পানীগঞ্জে দিন দিন ডাকাতি বাড়ছে বলে ধারণা করছেন উপজেলাবাসী।