কেমুসাসের ১০২৩ তম সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত

48

কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের ১০২৩ তম সাহিত্য আসরে বক্তারা বলেছেন, লেখক না থাকলে একটি জাতির ইতিহাস টিকে থাকে না। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ইতিহাসের ধারাকে বাঁচিয়ে রাখতে লেখকদের ভূমিকা অনস্বীকার্য।
বক্তারা বলেন, আমাদের দেশে লেখকদের মূল্যায়নের ক্ষেত্রটা তেমন প্রশস্ত নয়। সমাজের অন্যসব শ্রেণির মানুষের তুলনায় লেখকদের মূল্যায়নের চর্চাটা খুবই সীমিত। আমাদের উচিত সৃজনশীল কাজের মাধ্যমে নিজের সম্মান দিনে দিনে উন্নত করা।

গত বৃহস্পতিবার রাতে সংসদের সাহিত্য আসরকক্ষে অনুষ্ঠিত এ আসরে সভাপতিত্ব করেন সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক আব্দুল মুকিত অপি।

আলোচনায় অংশ নেন কেমুসাসের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দেওয়ান মাহমুদ রাজা চৌধুরী, বিশিষ্ট কবি মুকুল চৌধুরী,সহসভাপতি গল্পকার সেলিম আউয়াল, কার্যকরী পরিষদ সদস্য মুহিত চৌধুরী, যুক্তরাজ্য প্রবাসী বিশিষ্ট আইনজীবি দেওয়ান মেহদী, কবি ও সাহিত্য সমালোচক বাছিত ইবনে হাবীব, ছড়াকার ও সংগঠক কামরুল আলম এবং কবি ও সংগঠক সৈয়দ মুক্তদা হামিদ।

সাহিত্য আসরে লেখাপাঠে অংশনেন-এম এ হান্নান, সাঈদ চৌধুরী, সিরাজুল হক, মোহাম্মদ আব্দুল হক, কুবাদ বখত চৌধুরী রুবেল, সামছুদ্দোহা ফজল সিদ্দিকী, শাহিনা জালালী, কাজী আল মামুন, এমদাদুল হক, ওবায়দুর রহমান, মকসুদ আহমদ, এম আশরাফ আলী, আনোয়ার হোসেন মিসবাহ, সেলিম সিকদার, মো. শাহিন উদ্দিন, শাহাদাত চৌধুরী, কামাল আহমদ, মো. বাহার উদ্দিন (বাহার), হিমেল মাহমুদ, আব্দুল গাফফার, আরবী রহমান, জেসমিন আক্তার, লায়েক আহমদ মাসুম, নাজিম উদ্দিন, আলহাজ লুৎফুর চৌধুরী, ও জুবের আহমদ সাজন।

উপস্থিত ছিলেন সংসদের কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক আব্দুস সাদেক লিপন, কার্যকরী পরিষদ সদস্য ফজলুল করিম আজাদ, গল্পকার মিনহাজ ফয়সল।
সাহিত্য আসর উপস্থাপনা করেন গল্পকার তাসলিমা খানম বীথি। শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন আব্দুল কাদির জীবন। বিজ্ঞপ্তি

সবুজ সিলেট/জেএ