আজ পর্দা উঠছে বিপিএলের ৬ষ্ঠ আসরের

25

সবুজ সিলেট ডেস্ক
এবার রংপুর রাইডার্স আর চিটাগাং ভাইকিংসের ম্যাচ মধ্য দিয়ে পর্দা উঠছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের (বিপিএল) ৬ষ্ঠ আসর। ৫ম আসরের মতো এবারও মাঠে থাকছে রংপুর রাইডার্স, ঢাকা ডাইনামাইটস, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস, চিটাগং ভাইকিংস, খুলনা টাইটানস, রাজশাহী কিংস এবং সিলেট সিক্সার্স। গতবারের মতো এবারও দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) খেলতে পারছে না বরিশাল বুলস। গত আসর অর্থাৎ ২০১৭ সালের আসরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে (বিসিবি) ব্যাংক গ্যারান্টি না দিতে পারায় শেষ মুহূর্তে বাদ পড়েছিল বিপিএল থেকে। সেবারও বরিশালকে বাদ দিয়ে খেলা হয়েছিল ৭ দল নিয়ে। যদিও এবার ব্যাংক গ্যারান্টির কোন ঝামেলা নেই তাও পঞ্চম আসরের মতো ষষ্ঠ আসরেও তাদের বাদ দিয়েই শুরু হচ্ছে বিপিএল।

আজ শনিবার (৫ জানুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে লড়বে চিটাগং ভাইকিংস। অপর ম্যাচে সন্ধ্যা ৫টা ২০ মিনিটে ঢাকা ডায়নামাইটসের প্রতিপক্ষ রাজশাহী কিংস।

ধারণা করা হচ্ছে এটাই হতে যাচ্ছে বিপিএলের সবচেয়ে আকর্ষণীয় আসর। বল পিচে গড়ানোর আগে সবচেয়ে আকর্ষণীয় বলা কি ঠিক হলো? নিশ্চয়ই প্রশ্ন উঠছে। তা উঠতেই পারে। তবে কিছু প্রাসঙ্গিক ও বাস্তবসম্মত ইস্যুই বলে দিচ্ছে বিপিএলের এবারের আসরটি সবচেয়ে আকর্ষণীয় হতে যাচ্ছে।

কারণ, প্রায় শুরু থেকে সর্বাধিক তারকার সমাবেশ ঘটতে যাচ্ছে এবার। ক্রিস গেইল, আন্দ্রে রাসেল, সুনিল নারিন, এভিন লুইস আর পোলার্ডরা আছেন আগের মতই। এবার তাদের সাথে যুক্ত হতে যাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়া তথা বিশ্ব ক্রিকেটের দুই বড় তারকা স্টিভেন স্মিথ আর ডেভিড ওয়ার্নার। এরই মধ্যে রাজধানীতে অবস্থান করছেন ওয়ার্নার এবং স্মিথ।

একই সাথে দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটের সব সময়ের অন্যতম সেরা উইলোবাজ এবি ডি ভিলিয়ার্সও প্রথমবার বিপিএল খেলতে আসছেন ঢাকায়। তাদের সাথে ইংল্যান্ডের অ্যালেক্স হেলস আর ইয়ান বেলসহ আরও বেশ কিছু নামি-দামি তারকার দেখা মিলবে এবার।

বিপিএলে আগেও তারকার সমাবেশ ঘটেছে; কিন্তু শুরু থেকে এত বিপুল সংখ্যক বিশ্ব বরেণ্য ও নামি-দামি ক্রিকেটার আগে কখনো বিপিএল খেলতে আসেননি। এটা একটা নতুনত্ব এবং বড় তাৎপর্য ও বৈশিষ্ট্য এবারের আসরের। সে সাথে প্রচারণায়ও আসছে নতুনত্ব। অভিনবত্ব।

আগের আসরগুলোতে ক্যামেরার কাজ ভাল ছিল না। সেই অপবাদ ঘোচাতে ব্যস্ত আয়োজকরা। এবার ২৬ থেকে ৩৬টি ক্যামেরা ব্যবহারের কথা শোনা যাচ্ছে। প্রথম পর্বে স্পাইডার ক্যামেরা না থাকলেও পরের পর্বেই স্পাইডার ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। এছাড়া মানববিহীন ‘ড্রোন’ থাকবে এবারের আসরে।

সবচেয়ে বড় কথা আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার সুযোগ থাকবে। মানে রিভিউ সিস্টেমও আছে এবার। বলার অপেক্ষা রাখে না, আগে কখনোই রিভিউ সিস্টেম ছিল না বিপিএলে। সর্বাধিক তারকা, ক্যামেরা তথা প্রচার ব্যবস্থায় অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার এবং রিভিউ (ডিআরএস) সিস্টেম- সব মিলে নতুনের সমাহার।

কাজেই আয়োজকরা এখন পর্যন্ত কৃতিত্ব দাবি করতেই পারেন। তবে একটি বিষয় চোখে পড়ার মত। তাহলো, খোদ আয়োজক বিসিবি কর্তাদের নিঃস্পৃহতা। ঠিক নিষ্ক্রিয়তা বলা যাবে না। কারণ আয়োজকরা নিষ্ক্রিয় থাকলে এতবড় আয়োজন সম্ভব ছিল না; কিন্তু গত কদিন মানে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিপিএল নিয়ে খোদ বোর্ডে যতটা সাড়া পড়ার কথা ততটা চোখে পড়েনি।

বড় বড় তারকার মেলা বসার কারণে এবার আগে থেকেই বিপিএল নিয়ে গণমাধ্যম, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাড়া পড়ে গেছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ২৪ ঘণ্টা পর বেজেছে বিপিএল ডঙ্কা। গেইল, ওয়ার্নার, স্মিথ, ডি ভিলিয়ার্সদের নিয়ে সবাই ব্যতিব্যস্ত। একটা সাজ সাজ রব পড়ে গেছে চারিদিকে।

এদিকে এবারও দেশের তিন ভেন্যুতে হবে টি-টোয়েন্টির আসর। প্রথম পর্বে ঢাকার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হবে খেলা। পরের ভাগে ১৫ জানুয়ারি থেকে ১৯ জানুয়ারি পর্যন্ত খেলা হবে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। ঢাকায় ফিরে আরেক দফা খেলার পর বিপিএল যাবে চট্টগ্রামে। সেখানে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ২৫ জানিয়ারি থেকে ৩০ জানিয়ারি পর্যন্ত চলবে চট্টগ্রাম পর্বের খেলা। এলিমিনেটর ও চূড়ান্ত রাউন্ডের খেলা ফের আসবে ঢাকায়।

প্রতিদিন দুটি করে খেলা হবে আগের আসরের মতই। প্রথম খেলা শুরু হবে দুপুর সাড়ে ১২টায়। পরেরটি শুরু হবে বিকেল সাড়ে পাঁচটায়। তবে শুক্রবারে দুই ম্যাচ শুরু হবে যথাক্রমে দুপুর ২টা ও সন্ধ্যা ৭টায়।

মাসব্যাপী এই আসরের ফাইনালের তারিখ ঠিক করা হয়েছে ৮ ফেব্রুয়ারি। কোন কারণে ওইদিন খেলা না হলে পরদিন রিজার্ভ ডেতে হবে খেলা।
-সবুজ সিলেট/এসবি