রাজনগরে সরকারী এম্বুলেন্স নিয়ে গাছে ধাক্কা দিলেন স্টোরকিপার

6

রাজনগর প্রতিনিধি
শখের বসে শিখতে চেয়েছিলেন ড্রাইভিং। এজন্য বেছে নিলেন সরকারী এম্বুলেন্স। কিন্তু ট্রায়াল দিতে গিয়েই যত বিপত্তি। গাছের সঙ্গে ধাক্কা দিয়ে দুমড়ে মুছড়ে দিলেন চলমান এম্বুলেন্সটি। রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টোরকিপার অচিন্ত কুমার দাস এমন ঘটনা ঘটালেন।
এতে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ এম্বুলেন্সটি রাতেই ট্রাকে তুলে সরিয়ে নেয়া হয়েছে অন্য কোথাও। তার আগেই বিষয়টি ভাইরাল হয়ে যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। এতে সাধারণ মানুষ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি এম্বুলেন্স চালক আলাউদ্দিন। সম্প্রতি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আরো একটি এম্বুলেন্স যোগ হওয়ায় তিনি নতুন এম্বুলেন্সটি চালাচ্ছেন। ২২’শ সিসির এম্বুলেন্সটি চালাচ্ছেন আউট সোর্সিংয়ের চালক নিয়োগপ্রাপ্ত ড্রাইভার সুমন। তাকে কয়েকদিন থেকে ড্রাইভিং শেখাতে অনুরোধ করছিলেন স্টোরকিপার অচিন্ত কুমার দাস।
গত বৃহস্পতিবার বিকালে শখের বসে ড্রাইভিং শিখতে গিয়ে হাসপাতাল কম্পাউন্ডের ভীতরে গাছের সাথে ধাক্কা লাগান অচিন্ত কুমার দাস। এতে দুমড়ে-মুচড়ে যায় হাসপাতালের এম্বুলেন্সটি (গাড়ি নং ঢাকা মেট্রো-ছ-৭১-০৩১৮)। ঘটনার পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকের অগোচরে ট্রাক দিয়ে এম্বুলেন্সটি নিয়ে যাওয়া হয়েছে কোনো এক গ্যারেজে। বিষয়টি জানার পর উপজেলার সর্বস্থরের মানুষ ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেন। মুচড়ে যাওয়া এম্বুলেন্সের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপলোড করার পর তা ভাইরাল হয়।
ড্রাইভার সুমন আহমদ জানান, স্টোরকিপার কয়েকদিন থেকে তাকে ড্রাইভিং শেখানোর জন্য বলছিল। গত বৃহস্পতিবার ড্রাইভিং শিখতে গিয়ে এমন ঘটনা ঘটে।
এ বিষয়ে রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএইচএ ডাক্তার বর্ণালী দাসের ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌসি আক্তার বলেন, উনারা আমাকে বলেছিলেন শেইড ঠিক করার জন্য। কিন্তু এভাবে দুমড়ে মুছড়ে যাওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিচ্ছি।