সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে পরিকল্পনামন্ত্রী : সিলেটের যে-কোনো কাজ অগ্রাধিকার পাবে

43

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটের যে-কোনো কাজ অগ্রাধিকার দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেন, আমি সরকারের একটি অংশ। আমাকে পরিচালনা করে দল। আর আমাকে সব কিছু করতে হয় সরকারের একটি অংশ হিসাবে। আমাদের জাতীয়ভাবে যে ইশতেহার দেওয়া হয়েছে সেটির মাধ্যমেই সকল কাজ পরিচালনা করতে হয়। তারপরও বৃহত্তর সিলেটের উন্নয়ন হবে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে।
গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় সিলেট সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, অতীতে ইশতেহার আমরা প্রতিপালন করেছি। গত নির্বাচনে যে ইশতেহার দেওয়া হয়েছে অতীতের ইশতেহার বাস্তবায়ন করা হয়েছে বলেই। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থা অর্জন করতে পেরেছি তাই তৃতীয়বারের মতো মূল্যায়ন করা হয়েছে। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে দুর্নীতি প্রতিরোধ করা হবে।
মন্ত্রী আরো বলেন, সরকারের মূল লক্ষ্য হচ্ছে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন। ইতোমধ্যে সিলেট-ঢাকা চারলেন প্রকল্প একনেকে পাস হয়েছে। সিলেট-ঢাকা রেললাইন ডুয়েল গেজ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমার মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত কাজ দ্রুত করে দেব। মন্ত্রী বলেন, আমার বয়স হয়েছে। এরপরও আমার কাজের স্পৃহা আছে। সিলেটের যে-কোনো কাজ সবার আগে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।
এমএ মান্নান বলেন, সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শিগগির সব ধরনের বিমান ওঠানামা করবে। প্রয়োজন অনুযায়ী রেলওয়ের কোচ বাড়ানো হবে বলেও মন্ত্রী উল্লেখ করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য টেনে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী সবাইকে নজরদারিতে রাখা হবে বলে জানিয়ে দিয়েছেন। তার এই উক্তি ধরে এগিয়ে গেলে দুর্নীতি অনেকটা কমে যাবে। এটি করতে হলে জনসচেতনতার প্রয়োজন আছে বলেও তিনি মনে করেন।
তিনি বলেন, আমি যে মন্ত্রণালয়ে আছি সেটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি মন্ত্রণালয়। আমি আগে আমলা ছিলাম। সেটি কাজে লাগানো যাবে। তার একটাই কারণ যারা আমার সঙ্গে কাজ করবে তারা সকলেই আমার সঙ্গে আগে একই টেবিলে কাজ করেছেন। এ কারণে কোনো কাজ এগিয়ে নিতে আমার তেমন অসুবিধা হবেনা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক মীর মাহবুবুর রহমান, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিদুর রহমান সাজু, সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি তাপস দাস পুরকায়স্থ, সিলেট প্রেসক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবীর প্রমুখ।