কুশিয়ারাপারের মাটি ইটভাটায় মাটি কর্তনে ঝুঁকিতে শেওলা সেতু

14

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি:
বিয়ানীবাজারে নদীর তীর কেটে গর্ত করে মাটি নেওয়া হচ্ছে ইটের ভাটায়। খরস্রোতা কুশিয়ারা নদীর তীর কাটার ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের পাশাপাশি ওই স্থানে নদী ভাঙন দেখা দিয়েছে। এতে বাস চলাচলের এই একমাত্র সেতুটি এখন হুমকির মুখে পড়েছে।
সিলেটের সাথে বিয়ানীবাজারের সরাসরি বাস যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম শেওলা সেতু। ২০০১ সালে নির্মিত সেতুটি এখন হুমকির মুখে। সেতুটি নির্মাণের পর একদম কিনারা ঘেঁষে তৈরি করা হয় সোনার বাংলা ব্রিক ফিল্ড। সোনার বাংলা নামের এই ইটভাটা শুরু থেকে নদীর তীর কেটে গর্ত করে প্রতিবছর মাটি নিয়ে যায়। বর্ষায় পলি এসে ভরাট হলে আবার মাটি কেটে নেওয়া হয়। এভাবে বছরের পর বছর মাটি কেটে নেয়ার ফলে সেখানে নদীর উভয়পারে ভাঙন দেখা দিয়েছে। পাশাপাশি গর্তের নিকটবর্তী হওয়াতে সেতুটিও হুমকির মুখে পড়েছে।
এভাবে ট্রাক ট্রাক্টর লাগিয়ে প্রতিবছর মাটিকাটা হলেও এবার শত শত শ্রমিক দিয়ে নদীর তলদেশ পর্যন্ত গর্ত করে মাটি কেটে নেওয়া হচ্ছে। প্রায় ত্রিশ বিঘা জমি জুড়ে নদীর তীর কেটে মাটি তুলে নেওয়া হচ্ছে।
নিয়ম অনুযায়ী নদীর তীরবর্তী স্থান থেকে মাটি কাটা বা নদীর বাঁধ কেটে মাটি নেওয়া আইনত দন্ডনীয়।
এছাড়া পরিবেশ আইনে জনবসতির দেড় কিলোমিটারের মধ্যে ইটভাটা স্থাপন নিষিদ্ধ হলেও সোনার বাংলা ইটভাটা গ্রামের ভেতরে নির্মিত।
কুশিয়ারা নদী এমনিতে খরস্রোতা। তাই নদীর দুই পারে ভাঙন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। শেওলা সেতুর পাশে নদীর তীরে খাদ করে মাটি তোলার কারণে পানির স্রোত এসে সেখানে ধাক্কা খায়। এতে সেতুর নিচে ও ওই এলাকায় ভাঙন তীব্র হচ্ছে। এখনই নদী ভাঙনরোধ করা না গেলে বিয়ানীবাজারের বাস চলাচলের একমাত্র শেওলা সেতুটি মারাত্মক ক্ষতির শিকার হবে। এমনকি মাটি সরে ভেঙেও পড়তে পারে।
এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের এসও মো. তানভির আলম জানান, সেতুর পাশ থেকে মাটিকাটা বন্ধে সংশ্লিষ্ট ইটভাটা মালিককে চিঠি দেয়া হবে। তাছাড়া থানা পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নির্দেশ দিয়েছেন।