অভিজ্ঞতা চাপে ফেলে দিচ্ছে সৌম্যকে

11

অনলাইন ডেস্ক:
অনেকের মতে, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তরুণদের মধ্যে অন্যতম প্রতিভাবান সৌম্য সরকার। কিন্তু তিনি তার প্রতিভার প্রয়োগ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এখনও সেভাবে করতে পারেননি। তবুও ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে সৌম্য বাংলাদেশ দলের অন্যতম ভরসা হয়ে থাকবেন। এশিয়ার ব্যাটসম্যানরা বাইরের দেশে পেস এবং বাউন্স বলে বেশ বিপাকে পড়ে। সৌম্য এখানে কিছুটা সাবলিল। তার ওপর তাই দলের আশা অনেক। তিনিও ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে ধারাবাহিক হতে চান।
তবে তিনি আছেন কিছু সমস্যায়। চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ভালো শুরু পাচ্ছেন কিন্তু রান বাড়াতে পারছেন না সৌম্য। জাতীয় দলে যখন ঢোকেন তখনও সৌম্য একই সমস্যায় ভুগেছিলেন। সেই সংকট কাটিয়ে পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাঠে দারুণ কিছু ইনিংস খেলেন সাতক্ষীরার এই ছেলে। তার আগে ২০১৫ বিশ্বকাপে উচিয়ে ধরেন তারুণ্যের ঝান্ডা।
সৌম্য সরকার বলেন, ‘তখন আমি (২০১৫ বিশ্বকাপে) আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নতুন। এবার তাই দলে সুযোগ পেলে ভালো পরিকল্পনা নিয়ে খেলার চেষ্টা করবো। ম্যাচের আগে সেজন্য ভালো প্রস্তুতি হওয়া খুবই দরকার। অনেক ম্যাচে ৩০-৪০ রান করে আউট হয়ে যাচ্ছি। এটা কাটিয়ে উঠতে হবে। এসব ম্যাচ থেকে অবশ্য অনেক কিছুই শিখছি।’
সৌম্য সাধারণত শট খেলতে পছন্দ করেন। এখনও সেভাবেই তাকে খেলতে দেখা যায়। তবে তার উপলব্ধি হলো ম্যাচের পরিস্থিতি বুঝে খেলা দরকার, ‘জুনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে আগে চাপমুক্তভাবে খেলতাম। এখন তো আর সেভাবে খেলতে পারি না। চাপ মনে হয়। তবে বিশ্বকাপে গিয়ে আমার অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর চেষ্টা থাকবে। আগের বিশ্বকাপে, চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে আমি যে সাহসী ক্রিকেট দেখিয়েছি তা আবার প্রয়োগের চেষ্টা করবো। দল চাপে থাকলে তো আর উইকেট বিলিয়ে ফেরা যাবে না।’
ডিপিএলে ভালো শুরু করে আউট হয়ে যাওয়া নিয়ে সৌম্য বলেন, ‘পরিকল্পনা মতো ব্যাট করার চেষ্টা করছি। আমার ব্যাটিংয়ের ধরণ ঠিক আছে। অধিকাংশ সময়ই ভালো বলে আউট হয়ে যাচ্ছি। দিনটা আমার না বলেই এমন হচ্ছে। তবে এভাবে ব্যাটিং করে যেতে পারলে আমি দ্রুত রান পাবো বলে মনে করছি। ঘরোয়া লিগের বাকি ম্যাচগুলোতে দীর্ঘক্ষণ ব্যাট করার চেষ্টা করবো। দলের অবস্থা বুঝে খেলাটা আসলে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’