কনে ছাড়াই বিয়ে

7

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক:
ধুমধাম করে বিয়ে হবে, ফুটফুটে বউ আনা হবে ঘরে- এমন স্বপ্ন দেখেছিলেন অজয়। প্রায়ই বলতেন, “বাবা আমার কি বিয়ে হবে না?”

সম্প্রতি ধুমধাম আয়োজনে ৮০০ অতিথির উপস্থিতিতে অজয়ের বিয়ে দিলেন বাবা বিষ্ণু বারোত। তবে ছিল না কোনো কনে!

ভারতের গুজরাটের হিম্মতনগরের বাসিন্দা অজয় গ্রামে কারো বিয়ে হলেই পৌঁছে যান। নিমন্ত্রণের ধার ধারেন না। কনে বা বর পক্ষের হয়ে উদ্দাম নেচে আসেন। তারপর বাড়ি ফেরেন বিষণ্ন মুখে। বাবাকে সেই পুরোনো প্রশ্ন।

বিষ্ণু জানতেন, ছেলের কোনো দিন বিয়ে হবে না। তাকে বিয়ে দিয়ে আরেকটি মানুষের জীবন নষ্ট করতে চান না। কারণ অজয় লার্নিং ডিজঅ্যাবিলিটির শিকার। আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের মতো আচরণ নয় তার।

২৭ বছর বয়সী অজয়ের সেই স্বপ্ন পূরণ হলো রোববার। একেবারে বিয়ের সাজ! সোনালি শেরওয়ানি, মাথায় পাগড়ি, গলায় গোলাপের মালা- পুরোদস্তুর বর সেজে ঘোড়ায় চড়ে চললেন বিয়ে করতে।

আয়োজনের কোনো খামতি ছিল না। প্রায় ২০০ জন বরযাত্রী গুজরাটি গানের তালে নাচতে নাচতে চললেন। সবই ঠিকঠাক। কিন্তু ছিল না কনে কোথায়।

ওই দিন কনে ছাড়াই বিয়ে হয় অজয়ের। গুজরাটি আচার-অনুষ্ঠান মেনে এক দিন আগে সংগীত ও মেহেন্দি অনুষ্ঠান হয়। বিয়ের আয়োজনে কমপক্ষে ৮০০ অতিথি আমন্ত্রিত ছিলেন।

বিষ্ণু বারোত বলেন, “বিয়ে করার ইচ্ছে ছিল ছেলের। তার স্বপ্ন পূরণ করতে পেরেছি এতেই আমরা খুশি। ওর জন্য মেয়ের জোগাড় করতে পারিনি ঠিকই, কিন্তু বিয়ের আচার-অনুষ্ঠানে কোনো ত্রুটি রাখিনি।”

অজয়ের চাচা কমলেশ বলেন, “অজয় নাচতে ভীষণ ভালোবাসে। ফেব্রুয়ারিতে ওর ভাইয়ের বিয়েতে দারুণ নেচেছিল। সবাই মুগ্ধ ওর নাচ দেখে।”

বিয়ের দিন খুবই হাসি-খুশি ছিলেন অজয়। গুজরাটি গানে নেচেছেন হয়তো এই ভেবে- আজ থেকে তিনি বিবাহিত পুরুষ!