লাউয়াছড়ায় টেলিটকের টাওয়ারনির্মাণ না করার সিদ্ধান্ত

9

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি
লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের পাশে টাওয়ার নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে রাষ্ট্রীয় টেলিকম প্রতিষ্ঠান টেলিটক। সমালোচনার মুখে গত সোমবার থেকে টাওয়ার নির্মাণের সামগ্রী অপসারণ শুরু করেছে টেলিটক। গত সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে টেলিটকের টাওয়ার নির্মাণের জন্য আনা বালু, পাথর ও রড সরানো শুরু হয় বলে জানিয়েছেন বন বিভাগের লাউয়াছড়ার বিট অফিসার আনোয়ার হোসেন।
গত মাসে লাউয়াছড়ার দুই কিলোমিটার এলাকায় ডলুছড়ার নামক স্থানে মোবাইল টাওয়ার স্থাপনের কাজ শুরু করে টেলিটক। এতে আপত্তি জানান পরিবেশবাদীরা। এই টাওয়ার বসানোর ফলে লাউয়াছড়ার জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পড়বে বলে আশঙ্কা পরিবেশবাদীদের। মোবাইলের টাওয়ারের রেডিয়েশনের কারণে বনের প্রাণীদের ক্ষতির আশঙ্কা প্রকাশ করে টাওয়ার স্থাপনে আপত্তি জানান বন বিভাগের কর্মকর্তারাও। এ নিয়ে গত কয়েকদিন মৌলভীবাজার ও শ্রীমঙ্গলে আন্দোলনও করে পরিবেশবাদী বিভিন্ন সংগঠন। এ অবস্থায় গত সোমবার সন্ধ্যার পর হতে লাউয়াছড়া থেকে টাওয়ার নির্মাণের সরঞ্জাম সরিয়ে নেওয়া শুরু করে টেলিটক।
এ বিষয়ে বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের মৌলভীবাজার রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোনায়েম হোসেন বলেন, ‘আমরা জেনেছি টেলিটক তাদের মালামাল নিয়ে যাচ্ছে। আমরা এখনও বিস্তারিত কিছু জানি না। তবে আমরা আগের অবস্থানেই অনড় আছি। লাউয়াছড়ার পাশে কোনো টাওয়ার বসানোর অনুমতি বন বিভাগ দেবে না।’
এ ব্যাপারে টেলিটকের প্রকৌশলী প্রিয়ব্রত ধর গত সোমবার রাতে বলেন, আমরা ইতোমধ্যে আমাদের সকল নির্মাণসামগ্রী সরিয়ে নিয়েছি। উপর মহল থেকে নির্দেশ এসেছে এগুলো সরিয়ে নেয়ার, তাই আমরা সন্ধ্যা থেকেই কাজ শুরু করে সব সামগ্রী সরিয়ে নিয়েছি।’
টাওয়ার নির্মাণের জন্য লাউয়াছড়ার পাশে ডলুছড়ায় টেলিটকের কর্মীরা বিশাল গর্ত খুঁড়েছিলেন। টাওয়ার তৈরির জন্য আনা হয়েছিল বড় বড় রড। তবে সেখানে শ্রমিক ছাড়া টেলিটকের কাউকে পাওয়া যায়নি। বনের পাশে মোবাইল টাওয়ার নির্মাণের উদ্যোগে বন বিভাগ ও পরিবেশবাদীরা আপত্তি জানালে টাওয়ারের পক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। টাওয়ার নির্মাণের যৌক্তিকতা তুলে ধরে তিনি ফেসবুকে একাধিক স্ট্যাটাস দেন। তবে অবশেষে বনের পাশে টাওয়ার নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসতে হলো টেলিটককে।লাউয়াছড়ায় টেলিটকের টাওয়ার
নির্মাণ না করার সিদ্ধান্ত