পাঠানটুলায় সৎ মাকে কুপিয়ে জখম, ছেলে আটক

11

স্টাফ রিপোর্টার
নগরের পাঠানটুলা এলাকায় সৎ মাকে কুপিয়ে জখম করেছে ইমন আহমেদ নামে এক যুবক। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় সুমনা বেগম (৩০) নামে ওই নারীকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর পাঠানটুলা এলাকার সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শাহনুর নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সিএনজি চালিত অটোরিকশায় সুমনা নগরের পাঠানটুলা সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে এসে নামেন। এ সময় আগে থেকেই সেখানে ওৎ পেতে থাকা চার থেকে পাঁচজন যুবক সুমনাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। পরে তার চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে দ্রুত তাকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।
আহত সুমনার মেয়ে ফাইজা আক্তারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, রমজান মাসের বাজারের টাকা দিতে ওই নারীকে খবর দিয়ে পাঠানটুলা সানরাইজ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে আনে তার স্বামী মুহিবুর রহমান বেলাল। পরে অটোরিকশা থেকে নামতেই সুমনার হাতে টাকা দিয়ে চলে যান বেলাল। এমন সময় বেলালের প্রথম স্ত্রীর ছেলে ইমনসহ কয়েকজন সুমনাকে কুপিয়ে জখম করে। পরে অটোরিকশার চালকসহ স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।
ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, সুমনার শরীরের বিভিন্নস্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তার অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। যে কারণে আশঙ্কাজনক অবস্থায় গত বুধবার রাত ১২টার দিকে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।
মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মিঞা বলেন, পারিবারিক বিরোধ থেকে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় সুমনার হাতের রগ কেটে গেছে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে।