ফখরুলের প্রশ্ন সরকার কি খালেদাকে কারাগারেই মেরে ফেলতে চায়

6

মেরে ফেলতে চায়
সবুজ সিলেট ডেস্ক
বিনা চিকিৎসায় সরকার কি খালেদা জিয়াকে কারাগারেই মেরে ফেলতে চায়? এমন প্রশ্ন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের।
গতকাল শুক্রবার দুপুরে গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সরকারের উদ্দেশে তিনি এ প্রশ্ন করেন।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘আমাদের কাছে যেটা মনে হয়েছে, যেটা আমরা বিশ্বাস করতে চাই না, তারা (সরকার) কি দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এইভাবে বিনা চিকিৎসায় কারাগারের মধ্যেই মেরে ফেলতে চায়? তারা কি হত্যা করতে চায়?’
‘এত দুর্বলতা কেন, নিজের প্রতি এতো আস্থার অভাব কী জন্য? যেহেতু তারা আগের রাতেই তাদের মতো করে ভোট নিয়ে গেছেন, সরকার গঠন করেছেন, তারা জানেন জনগণের কোনো সমর্থন তাদের নেই। সেই জন্য তারা জনগণের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এইভাবে আটক করে রেখে, তাকে চিকিৎসা না দিয়ে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে’ বলেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
‘তিনি বলেন, ‘আমরা আবারও বলছি, আহ্বায়নও করছি- অবিলম্বে তাকে মুক্তি দিন। মুক্তি দিয়ে তার সুচিকিৎসা করুন।’
এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা কি কখনো বলেছি যে, তার মুক্তির সঙ্গে পার্লামেন্টে যাওয়ার কোনো সম্পর্ক আছে? আমরা ডিনাই করেছি। আমরা বলেছি যে, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে, বর্তমান পরিস্থিতির কারণে, গণতন্ত্রের স্বার্থে আমরা পার্লামেন্টে গেছি।’
তিনি বলেন, ‘আমরা কিন্তু বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যের সঙ্গে, চিকিৎসার সঙ্গে, মুক্তির সঙ্গে পার্লামেন্টে যাওয়ার বিষয়টিকে কখনো জড়াইনি। দুঃখজনকভাবে আপনারা (মিডিয়া) এটা করেছেন। বেগম জিয়ার মুক্তি তো কন্ডিশনাল হবে না। আইনিভাবে হবে— এটা তার প্রাপ্য।’
অপর এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘প্যারোল নিয়ে আমাদের কোনো চিন্তা নেই। একটাই চিন্তা, যেটা তার প্রাপ্য-জামিন। সেই জামিনটাই আমরা চাই। আমরা আশা করি, উচ্চ আদালতের কাছে প্রত্যাশা করি খালেদা জিয়া জামিনে মুক্তি পাবেন।’
সরকার ছল চাতুরির আশ্রয় নিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি বিলম্বিত করছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করেন না কেন? প্রতিপক্ষকে জেলে আটকে রেখে আপনারা রাজনীতি করছেন কেন? বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করেন, তারপর দেখি কীভাবে রাজনীতি করেন আপনারা।’
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরুদ্দিন সরকার, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেড এম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল কাইয়ুম ও মনিরুল হক চৌধুরী।