যুক্তরাষ্ট্র নিউইয়র্কে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান

10
কামরুজ্জামান হেলাল যুক্তরাষ্ট্র:
 যুক্তরাষ্ট্র সফর করছেন কিংবদন্তি সাকিব আল হাসান গত বিশ্বকাপে বাংলাদেশের হয়ে অসাধারণ খেলেছেন সাকিব গড়েছেন একের পর এক রেকর্ড। শো টাইম মিউজিকের কর্ণধার আলমগীর খান আলমের তত্ত্বাবধানে সাকিবের সাথে কথোপকথন, ছবি তোলা চলে রাত ১১টা পর্যন্ত। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে সাকিব আল হাসান বলেন, কখনো যদি দলের অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপ হাতে নিতে পারেন, তাহলে সেটাই হবে নিজের জীবনের সেরা অর্জন। কিভাবে এতটা ভালো খেললেন এমন প্রশ্নের জবাবে হেসে সাকিব বললেন, চেষ্টা করেছেন দেশের জন্য কিছু একটা করতে। ভবিষ্যতে অধিনায়ক হলে সেরা লক্ষ্য কী হবে? এমন প্রশ্নে বিশ্বকাপের শিরোপা জয়ের স্বপ্নের কথাই বললেন তিনি। এবারের বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে করেছেন ৬০৬ রান। বল হাতে নিয়েছেন ১১ উইকেট। এমন কীর্তি এর আগে কেউ গড়তে পারেননি বিশ্বকাপে। ছিলেন বিশ্বকাপের ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট হওয়ার দৌড়ে। কী ভেবেছিলেন বিষয়টি নিয়ে? এমন প্রশ্নে সাকিব বললেন, তিনি শেষ পর্যন্ত ভেবেছিলেন, হয়তো পুরস্কারটা পেয়ে যাবেন। তবে যেভাবে দলকে ফাইনালে তুলেছেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন, তাতে তাঁকে ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট করায় কোনো আক্ষেপ নেই সাকিবের।
চলতি বিশ্বকাপের ফাইনালে যেভাবে শিরোপা নির্ধারিত হয়েছে, গোটা বিষয়টিকে অদ্ভুত বললেন সাকিব আল হাসান। আর হয়তো এমনটা দেখা যাবে না উল্লেখ করে সাকিব বলেন, অসাধারণ একটি ফাইনাল হয়েছে। তবে ফলাফল নির্ধারণের প্রক্রিয়া নিয়ে আইসিসিকে ভেবে দেখার আহ্বানও জানান তিনি। অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে নিয়েও প্রশ্ন আসে সেখানে। উত্তরে নিজের অধিনায়ককে প্রশংসায় ভাসালেন সাকিব। তিনি বলেন, মাশরাফি অনেক দিয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটকে। এ ছাড়া বাংলাদেশের ক্রিকেট ভবিষ্যৎ, আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন সাকিব আল হাসান। রবিবার ফ্লোরিডার ফোর্ট লডারডেলে একতারা নামের সংগঠনের আয়োজনে আরেকটি সুধী সমাবেশে অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শাহ নেওয়াজ, মইনুল ইসলাম, ডা. ফেরদৌস খন্দকার, ডা. মাসুদ রহমান, ডা. বর্ণালী হাসান, মেহেদি হাসান, ইয়াকুব এ খান, ফরিদ আলম, ডা. চৌধুরী সাওয়ার হাসান, হাজি এনাম, আনোয়ার হোসেনসহ অনেকে। সাংবাদিক ও লেখক শামীম আল আমিনের সঞ্চালনায় গোটা অনুষ্ঠানটি হয়ে উঠেছিল প্রাণবন্ত। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সংগীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট শিল্পী তনিমা হাদী।