আবারও চাঁদে যাচ্ছে মানুষ হেডকোয়ার্টার্স এলাবামায়

7

সবুজ সিলেট ডেস্ক
হোয়াইট হাউজের ইচ্ছায় আবারও মানুষের চাঁদে যাওয়ার আয়োজন করতে যাচ্ছে নাসা। মার্কিন প্রশাসনের বেঁধে দেওয়া পাঁচ বছরের সময়সীমার ভেতরেই অর্থাৎ ২০২৪ সালের মধ্যে এই আয়োজন সম্পন্ন করতে চাচ্ছে মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা।
দুজন নারী-পুরুষকে চন্দ্র অভিযানে পাঠাতে যাওয়া এই অভিযানের নাম নেওয়া হয়েছে আর্টেমিস-২০২৪।
আর্টেমিস-২০২৪ অভিযানের প্রস্তুতিতে অনেকদূর এগিয়েছে নাসা। গত মাসে চাঁদে অবতরণকারী মুন ল্যান্ডার নির্মাণের জন্য উন্মুক্ত বাণিজ্যিক দরপত্র আহবানের পর এবার এই অভিযানের মূল ওয়ার্ক স্টেশনের নাম ঘোষণা করেছে তারা।
ওয়ার্ক স্টেশন নির্ধারিত হয়েছে ১৯৬০ সালে নির্মিত এলাবামার হান্টসভিলে। স্থানীয়দের কাছে যা রকেটসিটি নামে পরিচিত। ৬০ ও ৭০-এর দশকে স্যাটার্ন-৫-এর অ্যাপোলো অভিযানের সময়ে নির্মিত ও ব্যবহৃত এই স্টেশনটিকেই আর্টেমিস-২০২৪ অভিযানের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে। যদিও টেক্সাসের হোস্টনে অবস্থিত জনসন স্পেস সেন্টার ওয়ার্ক স্টেশন হবার দৌড়ে এগিয়ে ছিল।
এমনকি টেড ক্রে্যুর মতো প্রভাবশালী মার্কিন সিনেটরও নাসার কাছে খোলা চিঠি লিখে অনুরোধ করেছিলেন, যেন এই অভিযানের ওয়ার্ক স্টেশন হোস্টনে করা হয়। নাসা আনুষ্ঠানিক ঘোষণার সময় বলেছে টেক্সাস এবং এলাবামার যৌথ সহযোগিতার ভিত্তিতে ২০২৪ সালের অভিযান পরিচালিত হবে।
এই অভিযানের মোট ৩৬৩ ধাপের মধ্যে ১৪০ ধাপ হান্টসভিল থেকে এবং ৮৭ ধাপ জনসন স্পেস সেন্টার থেকে সম্পন্ন করা হবে। তবে এলাবামার হান্টসভিলই হবে আর্টেমিস ২০২৪ অভিযানের মূল ওয়ার্কস্টেশন। এখান থেকেই দুজন নারী-পুরুষ নভোচারী চাঁদের দক্ষিণ প্রান্তের উদ্দেশে নভোযানে উঠবেন।