স্পেনে যাওয়ার পথে বালাগঞ্জের মামুনের মৃত্যু

25

 

ওসমানীনগর প্রতিনিধি
স্পেনে যাওয়ার পথে আলজেরিয়ায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী আব্দুল্লা আল মামুনের (২২) লাশ গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে দেশে এসে পৌঁছেছে। স্পেনে যাওয়ার পথে ৩১ জুলাই আলজেরিয়া পৌঁছার পরই মামুন হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে সেখানের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই হাসপাতালে ৪ দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর গত ৪ আগস্ট তিনি মারা যান। মামুন বালাগঞ্জ উপজেলার বোয়ালজুড় ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।
এদিকে মামুনের লাশ দেখে পরিবারের সদস্যরা কান্ন্ায় ভেঙে পড়েন, স্বজনরাও শোকে মুহ্যমান হয়ে পড়েছেন।
মামুনের চাচা ইউপি সদস্য আব্দুল নূর জানান, ছয় ভাইয়ের মধ্যে মামুন তৃতীয় ছিল সে সিলেট এমসি কলেজে লেখাপড়া করত। আজ বুধবার সকাল ১১টায় সিলেট নগরীর পাঠানটুলা জামেয়া মাদরাসা মাটে প্রথম নামাজে জানাজা এবং বেলা ২টায় মামুনের গ্রামের বাড়ি নুরপুর জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশের দাফন সম্পন্ন হবে।
মামুনের বড়ভাই এএসএম জাকারিয়া সাংবাদিকদের জানান, সাড়ে ৫ লাখ টাকার চুক্তিতে দালালের মাধ্যমে স্বপ্নের দেশ স্পেনের উদ্দেশ্যে গত ২২ ফেব্রুয়ারি পাড়ি জমান মামুন। বিমানের ফ্লাইটে ইন্ডিয়া থেকে সরাসরি স্পেন পৌঁছানোর কথা থাকলেও দালালরা মামুনের সাথে প্রতারণা করে। ইন্ডিয়া থেকে সরাসরি স্পেন না পাঠিয়ে সড়ক পথে মামুনসহ তার সহযাত্রীদেরকে দালালরা নিয়ে যায় মরিতানিয়া। কয়েক দিন পর তাদেরকে মরিতানিয়া থেকে মালিতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দীর্ঘ ৪ মাস অবস্থান করেন মামুন। একপর্যায়ে মামুনকে বিমানে মালি থেকে স্পেন পাঠানোর কথা বলে তার পরিবারের কাছ থেকে আরো দেড় লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় দালালচক্র। কিন্তু ওই দালালরা তাকে স্পেনে পাঠায়নি। পরে অন্য এক দালালের মাধ্যমে আলজেরিয়া হয়ে স্পেন যাওয়ার জন্য মরক্কোর উদ্দেশ্যে সড়কপথে যাত্রা করেন মামুন। কিন্তু আলজেরিয়ায় অবস্থানকালেই তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হন।