সবুজ সিলেটে সংবাদ প্রকাশের পর ধলাই নদে অবৈধ বালু উত্তোলনরোধে অভিযান

19

কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি
দৈনিক সবুজ সিলেটে সংবাদ প্রকাশের পর কোম্পানীগঞ্জে ধলাই নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন ও চাঁদাবাজি বন্ধে অভিযান চালিয়েছে থানা পুলিশ। গত রোববার সকাল থেকে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানকালে ইজারা বর্হির্ভূত জায়গা থেকে বালু উত্তোলনের সময় ইঞ্জিনচালিত তিনটি বালুর নৌকা ও দুটি লিস্টার মেশিন জব্দ করা হয়।
এর আগে গত বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজেন ব্যানার্জীর নেতৃত্বে ধলাই নদীতে অবৈধ বালু উত্তোলন ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বালু উত্তোলন কাজে ব্যবহৃত ষোলোটি লিস্টার মেশিন ও আটটি মেশিন বহনকারী নৌকা জব্দ করে ধ্বংস করা হয়। যার আনুমানিক ক্ষতির পরিমাণ ২০ লক্ষ টাকা। এছাড়া ইজারা বহির্ভূত জায়গা থেকে বালু উত্তোলনের দায়ে বিভিন্ন নৌকা মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এ সময় চাঁদাবাজির অভিযোগে একটি নৌকাসহ কাউছার নামের একজনকে আটক করা হয়। সে পাড়–য়া মাঝপাড়া গ্রামের মৃত মইন উদ্দিনের পুত্র। এ ঘটনায় ওইদিন কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি চাঁদাবাজির মামলা হয়েছে।
এদিকে, ধলাই নদীতে ইজারা বহির্ভূত জায়গা থেকে বালু উত্তোলনের মহোৎসব চলছে। সেই সাথে বেড়েছে চাঁদাবাজদের দৌরাত্ম। লিজদানকৃত বালু মহালের বাইরে কালাইরাগ ও কালা সাদেক এলাকায় থাকা দুটি বালু মহালে লুটপাট চালানো হচ্ছে। বালু উত্তোলনের ফলে হুমকির মুখে পড়েছে সিলেটের দীর্ঘতম ধলাই সেতুটি। এর বাইরে প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে স্কুল, বাজার, মসজিদ, মাদ্রাসা, সরকারি রাস্তাও হুমকির মুখে রয়েছে। কোম্পানীগঞ্জের বড় হাটবাজার দয়ারবাজার, লিলাইরবাজার, ইসলামগঞ্জবাজার (বুধবারীবাজার) ও কুশিঘাট বাজার হুমকীতে রয়েছে। এছাড়া প্রতিটি বালুর নৌকা থেকে ভূমির মালিক, ইজারা ট্যাক্স ছাড়াও বিভিন্ন নামে-বেনামে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। আর এই লুটপাট ও চাঁদাবাজির কারণে নতুন করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়।
অন্যদিকে, বালুদস্যুরা স্থানীয় দরিদ্র কৃষকদের মালিকানা জমি থেকে জোরপূর্বক বালু তুলে নিয়ে যাচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গত বুধবার স্থানীয়দের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে একটি স্মারকলিপিও প্রদান করা হয়েছে।
পূর্ব ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. বাবুল মিয়া বলেন, ইসলামগঞ্জ বাজার থেকে মধ্যরাজনগর পর্যন্ত বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে ডিও লেটার দিয়েছেন মন্ত্রী ইমরান আহমদ। গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ করতে এই বাঁধটি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু, এখান থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ফলে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। তিনি অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসনের সক্রিয় ভূমিকা প্রত্যাশা করেন।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজেন ব্যানার্জী বলেন, ধলাই নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও চাঁদাবাজি বন্ধে উপজেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার থেকে চাঁদাবাজ ও বালুখেকোদের বিরুদ্ধে বড় ধরনের অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।