বৃদ্ধ সেজে যুক্তরাষ্ট্র যেতে গিয়ে ধরা

17

তাঁর মাথায় সাদা পাগড়ি। মুখজুড়ে ধবধবে সাদা দাড়ি। চোখে বড় চশমা। তিনি বসেছিলেন হুইলচেয়ারে। বেশভূষায় তাঁকে বয়স্ক না ভাবার কোনো কারণই ছিল না।

পাসপোর্টে যে জন্মসাল উল্লেখ করা, তাতে তাঁর বয়স ৮১ বছর। কিন্তু বিমানবন্দরে এক কর্মীর তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে ঠিকই ধরা পড়ে তাঁর ছদ্মবেশ।

৩২ বছরের এক ভারতীয় যুবক ৮১ বছরের বৃদ্ধ সেজে যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার উদ্দেশ্যে নয়াদিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে এভাবেই ধরা পড়েন।

সিএনএনের খবরে বলা হয়, গত ৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় রাত পৌনে ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে। ছদ্মবেশী যুবকের গন্তব্য ছিল নিউইয়র্ক।

ভারতের কেন্দ্রীয় শিল্প নিরাপত্তা বাহিনীর জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা শ্রীকান্ত কিশোর সিএনএনকে বলেন, ওই যুবক এমন বেশ ধরেছিলেন যে, তিনি অনেক বয়স্ক। চলাফেরায় অক্ষম। তাঁর পরনে ছিল সাদা পায়জামা-পাঞ্জাবি। মাথায় সাদা পাগড়ি। পায়ে কালো জুতা। প্রাথমিক অবস্থায় এমন ভাব করছিলেন যে, তিনি হুইলচেয়ার থেকে উঠে দাঁড়াতে অক্ষম।

বৃদ্ধের ছদ্মবেশ ধরা পড়ার পর উদ্বিগ্ন যাত্রী। ছবি: সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের (সিআইএসএফ) সৌজন্যেবৃদ্ধের ছদ্মবেশ ধরা পড়ার পর উদ্বিগ্ন যাত্রী। ছবি: সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের (সিআইএসএফ) সৌজন্যে

শ্রীকান্ত কিশোর বলেন, ‘স্ক্রিনিংয়ের সময় আমাদের স্ক্রিনার যখন ওই ব্যক্তিকে হুইলচেয়ার থেকে উঠে দাঁড়াতে বললেন, তখন তিনি জানান, তিনি দাঁড়াতে পারেন না। স্ক্রিনার যখন তাঁকে সাহায্য নিয়ে উঠতে বললেন, তখন তিনি অনিচ্ছায় দাঁড়ান। এ সময় ওই কর্মকর্তা যাত্রীর দাড়ি ও চুল খেয়াল করেন। তিনি দেখতে পান, যাত্রীর দাঁড়ি ও চুল সাদা হলেও গোড়া কালো।’

কর্মকর্তার চোখ ফাঁকি দেওয়ার খুব চেষ্টা করছিলেন ওই যাত্রী। তাঁর পাসপোর্ট চাওয়ার পর কর্মকর্তা দেখেন, তাতে লেখা নাম আমরিক সিং। জন্ম ১৯৩৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে, দিল্লিতে। অর্থাৎ, তাঁর বয়স ৮১ বছর।

শ্রীকান্ত কিশোর আরও বলেন, যাত্রীর শরীরের চামড়া ছিল অল্পবয়সী মানুষের মতো। এতে বোঝা যায়, তিনি কোনোভাবেই ৮০ বছরের বৃদ্ধ হতে পারেন না।

এরপর একের পর এক প্রশ্নবাণে পড়ে ওই যাত্রী স্বীকার করেন, তাঁর পাসপোর্টটি ভুয়া। তাঁর আসল বয়স ৩২ বছর। নাম জয়েশ প্যাটেল। তিনি গুজরাট রাজ্যের বাসিন্দা।

বৃদ্ধ সাজা যুবকের প্রকৃত চেহারা। ছবি: সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের (সিআইএসএফ) সৌজন্যেবৃদ্ধ সাজা যুবকের প্রকৃত চেহারা। ছবি: সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্সের (সিআইএসএফ) সৌজন্যে

সবকিছু পরিষ্কার হয়ে গেলে জয়েশ প্যাটেলকে আটক করে বিমানবন্দরের নিরাপত্তা বাহিনী। পরে তাঁকে অভিবাসন কর্তৃপক্ষের কাছে সোপর্দ করা হয়।

ভারতের কেন্দ্রীয় শিল্প নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকর্তা শ্রীকান্ত কিশোর বলেন, ওই যুবক কেন বয়স্ক সেজে যুক্তরাষ্ট্র যেতে চেয়েছিলেন, সে সম্পর্কে তিনি জানতে পারেননি।