হবিগঞ্জে অপচিকিৎসায় ব্যবসায়ী মৃত্যুর ঘটনায় মামলা

2

সবুজ সিলেট ডেস্ক:
হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামে হাতুড়ে ডাক্তারের অপচিকিৎসায় তৌহিদ মিয়া (৫৫) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যুর ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় আটক হাতুড়ে ডাক্তার শংকর রায়কে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

সোমবার সকালে তৌহিদ মিয়ার স্ত্রী ফুলবানু বাদী হয়ে লাখাই থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

প্রসঙ্গত, গত রোববার কৃষ্ণপুর গ্রামে ওই ডাক্তারের চেম্বারে এ চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটে। এ নিয়ে সর্বত্র তোলপাড় শুরু হয়েছে। সুত্র জানায়, হাতুড়ে ডাক্তার শংকর লাল রায় তার গ্রামে চেম্বার খুলে বিভিন্ন লোকদের সাথে প্রতারণা করে আসছে। তার প্রতারণার শিকার হয়ে অনেক রোগী পঙ্গুত্বসহ শয্যাশায়ী আছে। এমনকি অনেকে মারাও গেছে। কিন্তু রফা-দফা হওয়ার কারণে শংকর রায় থেকে যায় ধরা ছোঁয়ার বাইরে।

গত রোববার দুপুরে নাসিরনগর উপজেলা ও লাখাইয়ের পাশ^বর্তী গ্রাম কুড়িকুন্ডা গ্রামের মৃত আবু মিয়ার ছেলে ফান্দ্রাউক বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী তৌহিদ মিয়া কোমরে ব্যথা নিয়ে ওই ডাক্তারের কাছে আসে তখন ৪ টি ইনজেকশন একত্রে মিক্স করে তার শরীফে পুষ করে। ১০ মিনিট পরই তৌহিদ মিয়া শংকর রায়ের চেম্বারে মারা যায়।

এক পর্যায়ে তার বাড়ি থেকে তৌহিদ মিয়ার পরিবারকে খবর দিয়ে এনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সহযোগিতায় বিষয়টি সমাধান করে তৌহিদের লাশ তার গ্রামে পাঠিয়ে দেয়। ওই দিন বিকেলে তার লাশটি দাফনের সময় তৌহিদ মিয়ার পুত্রের সন্দেহ হলে সাথে-সাথে লাখাই থানার ওসিকে জানানো হয়। খবর পেয়ে ওসি তদন্ত অজয় চন্দ্র দেব ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করে লাখাই থানায় নিয়ে আসে এবং হাতুড়ে ডাক্তার শংকর রায়কে আটক করা হয়।

আটককৃত শংকর জানায়, সে অসুস্থ অবস্থায় চেম্বারে আসে। আমি সাধ্যমত চেষ্টা করেছি, সে মারা যাওয়ার পেছনে আমার কোন হাত নেই। গতকাল সোমবার বিকেলে হাতুড়ে ডাক্তার শংকর লাল রায়কে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।