হবিগঞ্জে স্ত্রীকে গলাকেটে হত্যা, স্বামী আটক

5

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
লাখাই উপজেলার পল্লিতে মাহফুজা বেগম (২৫) নামে এক নারীকে গলা কেটে হত্যা করেছে স্বামী। গত সোমবার দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল বুল্লা ইউনিয়নের ভরপূর্নি গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। মাহফুজা একই উপজেলার গোয়াকারা ওট্টামের ফীর ইসলামের মেয়ে। এ ঘটনায় তার স্বামী মকসুদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানায়, রাতে মাহফুজাকে গলাকেটে হত্যার পর বসতঘরের দরজা বন্ধ করে রাখে মকসুদ। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে আশপাশের লোকজন এসে ডাকাডাকি শুরু করেন। কিন্তু পুলিশ আসার পূর্বে দরজা খুলতে রাজী হয়নি ঘাতক। খবর পেয়ে রাত দেড়টার দিকে লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) অজয় চন্দ্র দেব ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার এবং মকসুদকে ওেট্টফতার করেন। ৭ বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হয় বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। বুল্লা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মুক্তার হোসেন বেনু জানান, সম্প্রতি দাম্পত্য কলহ সৃষ্টি হলে স্বামীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করে মাহফুজা। এরপর পিত্রালয়ে বসবাস করে আসছিল। প্রায় ৬ মাস পূর্বে এলাকার লোকজনের মধ্যস্থতায় বিরোধ নিষ্পত্তি হলে স্বামী মকসুদের বাড়িতে আসে সে। লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) অজয় চন্দ্র দেব জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার এবং মকসুদকে আটক করে। নিহতের গলা অর্ধকাটা এবং শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ হবিগঞ্জ আধুনিক জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে। এ ব্যাপারে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।