অবশেষে দেশে ফিরছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা

22
কামরুজ্জামান (হেলাল) যুক্তরাষ্ট্র:
অবশেষে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা দেশে ফিরছেন। তবে জীবিত নয়, ফিরছেন প্রাণহীন। দেশে নেয়ার সব রকম প্রস্তুতি ইতিমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। নিউইয়র্ক সময় ৫ নভেম্বর, মঙ্গলবার রাত ১১টায় জেএফকে বিমানবন্দর থেকে এমিরেটস এয়ারলাইন্সে অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত সাবেক মেয়র, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা হবে। ৭ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় সকাল ৮টা ১০ মিনিটে দেশে পৌঁছার কথা রয়েছে। নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণকারী অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচিত সাবেক মেয়র, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার নামাজে জানাজা আজ সোমবার বাদ এশা (সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা) জ্যামাইকা মসলিম সেন্টার (জেএমসি)-তে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজায় বিপুল বিএনপি- আওয়ামী লীগের নেতৃত্বন্দসহ বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করেন। নিউইয়র্ক সময় ৪ নভেম্বর, সোমবার, ভোর রাত ২টা ৫০ মিনিটে তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন । দাফন জুরাইন কবরস্থানে খোকার ব্যক্তিগত সহকারী নজরুল ইসলাম কিরণ বলেন, শেষ ইচ্ছা অনুযায়ী জুরাইন কবরস্থানে বাবার কবরেই দাফন করা হবে সাদেক হোসেন খোকাকে। সেখানে তার বাবা-মায়ের দু’টি কবরই কেনা।
মো. হানিফ ঢাকার মেয়র থাকাকালেই সাদেক হোসেন খোকা এটা ঠিক করে রেখেছিলেন, তার বাবার কবরেই যেন তাকে দাফন করা হয়। উল্লেখ্য, ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য ২০১৪ সালের ১৪ মে সপরিবারে নিউইয়র্ক চলে আসেন খোকা। তারপর থেকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী নিউইয়র্ক সিটির কুইন্সে একটি বাসায় দীর্ঘদিন ধরে বসবাস কওর চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি। প্রায় চার সপ্তাহ আগে সাদেক হোসেন শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে ভর্তি করা হয় তাকে। গত ২৮ অক্টোবর সোমবার স্বাস্থ্যের আরও অবনতি ঘটলে তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়। জনাব খোকার মৃতুর সময় তার স্ত্রী ইসমত আরা সহ দুই পুত্র ও কন্যা হাসপাতেই ছিলেন বলে জানা গেছে। এদিকে তাকে দেখতে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি’র নেতা-কর্মী সহ কমিউনটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ প্রতিদিন হাসপাতালে ভীড় করেন। সর্বশেষ রোববার তাকে দেখতে যান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। এসময় দলের সহ সভাপতি সৈয়দ বসারত আলী, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, যুগ্ম সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান প্রমুখ নেতৃবৃন্দ তার সঙ্গে ছিলেন।