বিচারহীনতার সংস্কৃতি আমাদের পেয়ে বসেছে: আইনমন্ত্রী

10

সবুজ সিলেট ডেস্ক
‘নিপীড়ন বিরোধী জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা’র পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকনুসরাত হত্যাকান্ডের তদন্ত ও এর দ্রæত বিচার নিষ্পত্তির ঘটনা আমাদের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে একটি যুগান্তকারী মাইলফলক হয়ে থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, ‘বিচারহীনতার সংস্কৃতি আমাদের পেয়ে বসেছে। তাই হত্যাকান্ডের দ্রæত বিচারের মাধ্যমে নারী-পুরুষের সমতা ফিরিয়ে এনে বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।’
গতকাল রোববার রাজধানীর এফডিসিতে ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট শিরোনামে ‘নিপীড়ন বিরোধী জাতীয় বিতর্ক প্রতিযোগিতা’র পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
নুসরাত হত্যার বিচারের প্রসঙ্গ টেনে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘নুসরাত হত্যার সবচেয়ে বড় মেসেজটি হচ্ছে, কেউ যদি কোনো নারীর প্রতি সহিংসতা ঘটায়, তাহলে তাকে সর্বোচ্চ সাজা গ্রহণে প্রস্তুত থাকতে হবে। সমাজ তাকে ক্ষমা করবে না।’
আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের স্বাক্ষ্য আইন অনেক পুরনো, সেটাকে আধুনিক করার চেষ্টা করা হচ্ছে। জাস্টিস ডিলেইড ইজ জাস্টিস ডিনাইড আবার জাস্টিস হারিড ইজ জাস্টিস বারড, দুটোই সত্য। বিচার বিভাগকে এই দুটি থিম লাইনের মধ্যে দিয়ে কাজ করতে হয়। আমাদের বিচার বিভাগ স্বাধীন, এই স্বাধীনতায় সরকার হস্তক্ষেপ করে না।’
সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, ‘নুসরাত এক বীর প্রতীক। এক প্রতিবাদী মেয়ে। নুসরাতের মতো আর কোনো ঘটনা আমরা দেখতে চাই না। নুসরাতের স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে সোনাগাজীর যে মাদ্রাসায় সে পড়তো, সে মাদ্রাসার নামকরণ নুসরাতের নামে করা হোক।’ তার মারা যাওয়ার দিন ১০ এপ্রিলকে বাংলাদেশে জাতীয়ভাবে ‘নিপীড়ন বিরোধী দিবস’ হিসেবে পালনের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান কিরণ।
‘নুসরাত হত্যার দ্রæত বিচার নারীর প্রতি সহিংসতা কমিয়ে আনবে’ শীর্ষক চূড়ান্ত এই ছায়া সংসদ বিতর্ক প্রতিযোগিতায় সমান নম্বর পেয়ে ঢাকা কলেজ ও ইডেন কলেজ যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়।