ইভিএম-এ জনরায় প্রতিফলিত হবে না : ফখরুল

2

সবুজ সিলেট ডেস্ক
ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) জনরায় প্রতিফলিত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
গতকাল রোববার বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর তিনি এ মন্তব্য করেন। ৮৪তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে জিয়াউর রহমানের সমাধিতে যান বিএনপি নেতারা।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনে ৩০ তারিখের ভোট ২৯ তারিখ রাতে ডাকাতি করে নিয়েছে। এই সিটি নির্বাচনেও একটি দলই প্রাধান্য পাচ্ছে। এখানে একটি অযোগ্য নির্বাচন কমিশন রয়েছে। তারা কোনোরকম ব্যবস্থা নিতে সক্ষম নয়। তাদের সেই যোগ্যতা নেই। তারা যে ইভিএমের মাধ্যমে নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে যাচ্ছে, সেটি বাংলাদেশের নির্বাচন ব্যবস্থাকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দেওয়ার আরেকটি অপকৌশল। এতে জনগনের রায় প্রতিফলিত হবে না।’
এ সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে গণতন্ত্রের সমস্ত পরিসর সংকুচিত করে ফেলছে। স্পেসগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে। এখানে সব দলের সমান সুযোগ বলে কিছু নেই।’
নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন প্রসঙ্গে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন যে ব্যর্থ, অযোগ্য, তারা যে নির্বাচন পরিচালনার ক্ষমতা রাখে না, সেটি প্রমাণ হয়েছে পূজার দিন ভোটের তারিখ নির্ধারণ করার মধ্য দিয়ে। সবচেয়ে বড় সমস্যা হল-যেখানে সরস্বতী পূজার আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়, ঠিক সেখানেই নির্বাচনের কেন্দ্রগুলো স্থাপন করতে হবে। ফলে একটা সমস্যা তৈরি হয়। নির্বাচন কমিশনের অযোগ্যতার কারণেই এই সমস্যা সৃষ্টি হয়েছিল।’
বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করেছে। গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করেছেন। কিন্তু অত্যন্ত দুর্ভাগ্য আমাদের, আজকে যখন আমরা তার জন্মদিন উদযাপন করছি তখন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে, বেআইনিভাবে, শুধু রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আওয়ামী শাসকগোষ্ঠী তাকে আটক করে রেখেছে। আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে বিদেশে নির্বাসিত করে রেখেছে। হাজার হাজার নেতাকর্মীকে তারা মিথ্যা মামলা দিয়েছে। গ্রেপ্তার করেছে, হত্যা করেছে, গুম করেছে। দেশকে একটা অগণতান্ত্রিক স্বৈরাচারী রাষ্ট্র হিসেবে তৈরি করেছে।’
তিনি বলেন, ‘আজকের এই দিনে আমরা শপথ নিয়েছি, যেকোনো ত্যাগের বিনিময়ে হলেও আমরা দেশের গণতন্ত্রকে মুক্ত করব। খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব এবং প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আদর্শ অনুযায়ী তার ১৯ দফা বাস্তবায়ন করব।’
এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমানসহ দলের কয়েকশ নেতাকর্মী ও সমর্থক।