পরীক্ষার্থীদের উত্তর বলে জেলে মাদ্রাসা শিক্ষক

4

জুড়ী প্রতিনিধি
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে চলমান দাখিল পরীক্ষায় নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের উত্তর বলে দিতে গিয়ে জেলে যেতে হলো হলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক শিক্ষকে। একইসাথে এ অপরাধে ওই শিক্ষককে জরিমানাও দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। তিনি উপজেলার জাঙ্গীরাই দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আতিকুল ইসলাম।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানায়, গত মঙ্গলবার উপজেলার হজরত শাহ খাকী ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা পরীক্ষা কেন্দ্রে দাখিল গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় কেন্দ্রের ৫ নং কক্ষে হল পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন শিক্ষক আতিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি অনিয়মতান্ত্রিকভাবে তাঁর কক্ষের দায়িত্ব রেখে কেন্দ্রের ৩নং কক্ষে গিয়ে তাঁরই নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের গণিতের নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষায় উত্তরপত্র বলে দিচ্ছিলেন। বিষয়টি কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার রাখেশ পালের নজরে পড়লে তিনি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বণিককে অবগত করেন। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও অসীম চন্দ্র বণিক পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে শিক্ষক আতিকুল ইসলামকে নগদ ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। এছাড়া ভবিষ্যতে কোন পাবলিক পরীক্ষায় হল পরিদর্শকের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না তিনি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অসীম চন্দ্র বণিক বলেন, শিক্ষক আতিকুল ইসলাম তাঁর অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন। পাবলিক পরীক্ষা (অপরাধ) আইন অনুযায়ী ৯ ও ১২ ধারায় কারাদন্ড ও জরিমানা করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্ব পালনে কোন অনিয়ম হলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এ ধরণের অনিয়মে সবসময় নজরদারি অব্যাহত থাকবে।
জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার বলেন, সাজাপ্রাপ্ত শিক্ষক আতিকুলকে মৌলভীবাজারের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।
পরীক্ষার্থীদের উত্তর বলে
জেলে মাদ্রাসা শিক্ষক
জুড়ী প্রতিনিধি
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে চলমান দাখিল পরীক্ষায় নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের প্রশ্নের উত্তর বলে দিতে গিয়ে জেলে যেতে হলো হলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এক শিক্ষকে। একইসাথে এ অপরাধে ওই শিক্ষককে জরিমানাও দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। তিনি উপজেলার জাঙ্গীরাই দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক আতিকুল ইসলাম।
উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানায়, গত মঙ্গলবার উপজেলার হজরত শাহ খাকী ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা পরীক্ষা কেন্দ্রে দাখিল গণিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরীক্ষায় কেন্দ্রের ৫ নং কক্ষে হল পরিদর্শকের দায়িত্বে ছিলেন শিক্ষক আতিকুল ইসলাম। এ সময় তিনি অনিয়মতান্ত্রিকভাবে তাঁর কক্ষের দায়িত্ব রেখে কেন্দ্রের ৩নং কক্ষে গিয়ে তাঁরই নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের গণিতের নৈর্ব্যক্তিক পরীক্ষায় উত্তরপত্র বলে দিচ্ছিলেন। বিষয়টি কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উপজেলা সমাজসেবা অফিসার রাখেশ পালের নজরে পড়লে তিনি বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসার অসীম চন্দ্র বণিককে অবগত করেন। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ইউএনও অসীম চন্দ্র বণিক পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে শিক্ষক আতিকুল ইসলামকে নগদ ৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও ৭ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন। এছাড়া ভবিষ্যতে কোন পাবলিক পরীক্ষায় হল পরিদর্শকের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না তিনি। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অসীম চন্দ্র বণিক বলেন, শিক্ষক আতিকুল ইসলাম তাঁর অপরাধের কথা স্বীকার করেছেন। পাবলিক পরীক্ষা (অপরাধ) আইন অনুযায়ী ৯ ও ১২ ধারায় কারাদন্ড ও জরিমানা করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্ব পালনে কোন অনিয়ম হলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। এ ধরণের অনিয়মে সবসময় নজরদারি অব্যাহত থাকবে।
জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার বলেন, সাজাপ্রাপ্ত শিক্ষক আতিকুলকে মৌলভীবাজারের কারাগারে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।