যে-কোনো নদী পুনরুদ্ধার করা প্রশাসনের দায়িত্ব সুলতানা কামাল

2

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি
কৃত্রিম বন্যা ও জলাবদ্ধতামুক্ত হবিগঞ্জ শহর গড়ে তুলতে পুরাতন খোয়াই নদী উদ্ধার অভিযান দ্রæত সম্পন্ন করার দাবিতে নাগরিক সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার ও পুরাতন খোয়াই নদী উদ্ধার ও পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি।
সমাবেশে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) কেন্দ্রীয় সভাপতি ও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, খোয়াই নদী দখলমুক্ত করার সাথে অন্য প্রকল্পের কোনো সম্পর্ক থাকতে পারে না। যে কোনো নদী দখলমুক্ত রাখার ও দখলকৃত জায়গা পুনরুদ্ধার করা প্রশাসনের নৈতিক, আইনগত ও প্রাতিষ্ঠানিক দায়িত্ব। এই দায়িত্ব পালনে অবহেলা করলে তার জবাবদিহিতা জনগণের কাছে একসময় দিতে হবে। তাই অবিলম্বে আগামি বর্ষার আগেই পুরাতন খোয়াই নদী পুনরুদ্ধার করে হবিগঞ্জবাসিকে জলাবদ্ধতা ও কৃত্রিম বন্যার হাত থেকে রক্ষা করতে হবে।
গত রোববার বিকেলে হবিগঞ্জ আরডি হল প্রাঙ্গণে এই নাগরিক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সমাবেশে মূল আলোচক ছিলেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শরীফ জামিল ।
তিনি বলেন, সারাদেশে নদী উদ্ধারের নামে নানান প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেহেতু নদীর সীমানা সঠিক ভাবে নির্ধারণ করা হয়নি, সেহেতু অনেক বড় বড় অবৈধ দখলদার এই ত্রুটিপূর্ণ উদ্ধার প্রক্রিয়ায় পার পেয়ে যাচ্ছে এবং নদী তার সীমানা হারাচ্ছে। হবিগঞ্জে কি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে তা হবিগঞ্জের মানুষ জানে না। অবশ্যই পুরাতন খোয়াই নদী পুনরুদ্ধার করে যথাযথ প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করতে হবে। তবে এই প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নে সকল পর্যায়ে নাগরিকদের সম্পৃক্ততা নিশ্চিত করতে হবে।
বাপা হবিগঞ্জের সভাপতি অধ্যাপক ইকরামুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন, হবিগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো. মিজানুর রহমান, বাপা নির্বাহী সদস্য আব্দুল করিম কিম।
আরও বক্তব্য দেন হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি অ্যাডভোকেট মনসুর উদ্দিন আহমেদ ইকবাল, বাপা হবিগঞ্জের সহসভাপতি তাহমিনা বেগম গিনি, সাংবাদিক শামিম আহসান, শোয়েব চৌধুরী।
পুরাতন খোয়াই নদী নিয়ে স্বাগত বক্তব্য দেন অ্যাডভোকেট আলাউদ্দিন তালুকদার এবং অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাপা হবিগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক, খোয়াই রিভার ওয়াটারকিপার তোফাজ্জল সোহেল ।